বিস্ময় অ্যানসারস এ আপনাকে সুস্বাগতম। এখানে আপনি প্রশ্ন করতে পারবেন এবং বিস্ময় পরিবারের অন্যান্য সদস্যদের নিকট থেকে উত্তর পেতে পারবেন। বিস্তারিত জানতে এখানে ক্লিক করুন...

সদস্যঃ মোঃ জিহাদ হোসেন

আমি সদস্য হয়েছি 11 মাস (since 31 জুলাই 2018)
সদস্যের ধরণ নিবন্ধিত সদস্য
অতিরিক্ত সুবিধাদিঃ প্রশ্ন জিজ্ঞাসা
যে কোন প্রশ্নকে পূনঃরায় বিভাগ বন্টন করা
যে কোন প্রশ্ন বন্ধ করা
যে কোন প্রশ্নের  জন্য উত্তর নির্বাচন করা
পূর্ণ নাম: মোঃজিহাদ হেসেন (সোহাগ)
লিঙ্গ: পুরুষ
কর্মক্ষেত্র: কলেজে পড়াশুনা করি।আর যেহেতু গ্রামে থাকি তাই সব ধরনের কাজ পারি। অসুস্থ থাকার কারনে এসএসসি পরিক্ষা ভালো দেইনি তাই কলেজে বড় ভাই মানবিক শাখায় যেতে বলেছে তাই মানবিকে পড়ি। লেখালেখি করি। ফেসবুকের যেমন চাহিদা তেমন লেখায় লিখি তা কিন্তু নয়। ফেসবুকে যেমন লেখা চলে তেমন লেখা দেই তবে এমন কিছু লেখা লেখি সেগুলোর ীস তারা খুজে পায় না তাই সেগুলো ডাইরি কিংবা মনেই রেখে দেই। মাঝে মাঝে কিছু লেখা ফেসবুকে দিলে কম বয়সি ছেলেমেয়েরা তার কিছুই বুঝেনা।তাই সহজ সাবলিন ভাষায় লেখে সেটা দেই। যাইহোক একজন ভাল লেখককে সহজেই ভাল মানুষ ভেবে নেয়াটা বোকামী। যেমন একজন ভাল ডাক্তার ভাল মানুষ নাও হতে পারে। বাংলাদেশে যত জন ডাক্তার আছে এরা সবাই যদি ভাল মানুষ হত, যদি প্রত্যেকটা ডাক্তার দিনে তিনটা করে রোগী বিনা পয়সায় দেখত তাহলে আর এদেশে কেউ বিনা চিকিৎসায় মারা যেতনা। লেখকের প্রতিটা গল্প তার জীবনের অংশ ভেবে নেয়ার কোন কারন নেই। একজন নেশাখোর লেখক মাতাল হয়ে ফযরের আযান শোনে। সে জানালা দিয়ে তাকিয়ে দেখে প্রচন্ড শীতে কাঁপতে কাঁপতে কেউ একজন টুপি পড়ে মুসজিদে যাচ্ছে। লেখক জানালা ধরেই সে ভাল মানুষটিকে ছুঁতে পারে। নেশা গ্রস্থ অবস্থায় সে যা লিখবে হয়ত তাতে আপনি জেগে যাবেন কিন্তু লেখক নিজেই হয়তো নেশায় পড়ে থাকবে। সব লেখক এক নয়। কেউ কেউ শুধু লেখার জন্য লেখে, মানুষকে মুগ্ধ করতে লেখে। কিন্তু কিছু লেখক কিছু উদ্দেশ্য নিয়ে লেখে। সুন্দর ভাবনা গুলো দিয়ে নিজের মত করে সবাইকে বদলে দিতে লেখে। তবুও ভাল খারাপ কোন লেখককে কখনো ব্যাক্তিগত ভাবে নিবেন না। লেখক গল্প তৈরি করে তাই তাকে কল্পনাতেই মানায়। খুব কাছে গেলে দেখবেন সব কিছু অন্যরকম। লেখক তার চারপাশে সব সময় ধোয়া ছড়িয়ে রাখে। আপনি কখনোই তার চিন্তা কে স্পর্শ করতে পারবেন না। সে কখনোই বুঝতে দিবেনা সে আসলে কে! কারন বুঝে গেলে গল্প শেষ! সহজ করে বলছি লেখক বার বার প্রেমে পড়ে অথচ ভালবাসে শুধু একজনকে। চৈত্রের খরা তাপে সে অচেনা কোন তরুনীর কপালে বিন্দু বিন্দু ঘাম দেখে প্রেমে পড়ে যায়, গোধুলির কুসুম রংে ক্লান্ত কোন কিশোরীর ঘরে ফেরা দেখে সে প্রেমে পড়ে যায়। প্রেমের গল্প লিখতে বার বার তাকে প্রেমে পড়তে হয় অথচ ভাল সে বাসে একজনকেই। তাই লেখক যখন আপনার দিকে মুগ্ধ হয়ে তাকাবে, গুন গুন করে কবিতা শোনাবে, ভাব্বেন না সে আপনাকে ভালবাসে। সে শুধুই আপনার প্রেমে পড়েছে, সে আপনার ভিতরে ঢুকে গেছে। আপনার সরলতা, আপনার উচ্ছাস গুলিকে সে বুঝে নিচ্ছে। আপনি শুধুই তার নতুন কোন গল্প হবেন। লেখক অকারনে আপনাকে কাঁদাবে কাদলে আপনাকে কেমন লাগে সেটা দেখতে। লেখক মিছে মিছি আপনাকে হাসাবে হাসলে আপনাকে কেমন লাগে সেটা দেখতে। আপনার দিন রাত সে সব হবে শুধু আপনাকে বুঝতে। একদিন বোঝা শেষ গল্পও শেষ। নতুন কোন গল্পের খোঁজে লেখক। আমি বলি লেখকের ভাল মন্দ নেই। লেখক হল অভিনেতা। অভিনেতাদের তার সাব্জেক্টের ভিতরে ঢুকে যেতে হয় । র�্যাপিষ্টের বিরুদ্ধে লিখতে হলেও আগে তাকে কল্পনায় র�্যাপিষ্ট হতে হয়। লেখক তার কল্পনায় ডুবে থাকে। তার কাছ থেকে কল্পনা সরিয়ে নিলে লেখা পাবেন না আবার তার কল্পনায় ঢুকে গেলেও তাকে পাবেন না। তাই লেখকের সাথে মিশে নয় তার লেখার সাথে মিশে তাকে বোঝার চেষ্টা করুন। যত ধোয়া সে ছড়িয়ে রাখুক না কেন নিজের অজান্তেই তার লেখাতে সে নিজেকে সাজিয়ে রাখে। শুধু খেয়াল রাখবেন লেখার মোটিভ টা কি সে আসলে তাই।,,,,,,
আমার সম্পর্কে বিস্তারিতঃ: আমি আলো আধারের সঙ্গি। আমার সম্পর্কে বললে শেষ হবে না। অগ্নি, আমিও বৃষ্টি, আমি পাগল, আমিন বিবেকবান, আমি দুষ্টু, আমি ভয়াবহ, আমি কঠিন, আমি কমল, আমি নিরীহ, আমি ধংস, আমি মিমাংসা, আমি একতা, আমি অনুরাগি, আমি সাধারণ, আমি পারি হারাতে, আমি পারি ফিরাতে, আমি পারি দুঃখ দিতে, আমি পারি সুখ দিতে, আমি নিঃসঙ্গ, আমি মিলন, আমি আমারি, আমি সকলের, আমি সেই ছেলে সবারডাকে দিয়ে থাকি সাড়া, আমি হিমালয়, আমি পারি তোমার জন্য কঠিনথেকে শান্ত, আমি পারি কাঁদাতে, আমি পারি আনন্দ দিতে, আমি অশান্ত, আমি নিশ্চুপ, আমি গর্জন, আমি নিরব, আমি বিকট, আমি সুশান্ত 『 আমি একজন রহস্যময় মানুষ...�মাঝে মাঝে নিজেইনিজেকে চিনতে পারিনা.....• ☞••তবে এমনিতে আমি খুবভালো ছেলে...� ☞••কারোসাথে রাগ করতে পারিনা,কাউকে কষ্ট দিতে পারিনা...� ☞••নিজে হাসতে আরসবাইকে হাসাতে ভালো লাগে...���� →ভালো লাগে← �¤শীতের কুয়াশা ¤বৃষ্টিতেভিজতে ¤আড্ডা মারা, কবিতা পড়তে¤ চুপচাপথাকাতে একদমভালো লাগে না ¤গোধূলী লগ্ন¤শান্ত নদী ¤প্রকৃতির সাথে ঘন্টারপরঘন্টা কাটানো ¤একা একা হাটতে গান গাইতে ¤গান শুনতে আর বই পড়তে ভীষণ ভীষণভালো লাগে ¤আমি খেতে, ঘুমাতে, বেড়াতে, আরআড্ডা মারতেও পছন্দ করি....� ¤বৃষ্টিখুব ভাল লাগে ,ভাললাগে বৃষ্টিতে ভিজতে�→ আরো ভালো লাগে← �¤ চাঁদ¤ জোছনা¤ পূর্ণিমা¤সবুজ প্রকৃতি¤ খোলা মাঠ¤ বিষাদী বাতাস¤ নদী¤ ডিঙিনৌকো¤ কুয়াশাভোর¤ সূর্যোদয়¤ নয়নতারা¤ শিশিরবিন্দু¤ বৃষ্টির শব্দ¤ সমুদ্রের গর্জন¤ পাখির ডাক¤ ঘুড়ি¤ সাদা মেঘ¤ নীল আকাশ¤ পানকৌড়ি¤ বালিহাঁস¤ মাছরাঙা¤ হিজলের বন¤ জলছবি¤ গোধূলী¤ কাশবন¤ রংধনু¤ মেঠোপথ , , ,�→আমার যা কিছু পছন্দ←� , ¤ ফুল: বকুল, শিউলী,রক্তজবা,রজনীগন্ধা, ¤ ফল: আম,লিচু,আর সময় কাটানোর জন্য বাদাম ¤ খাবার: বিরিয়ানী,আইসক্রীম¤ পানীয়: সেভেন আপ ¤ রং: কালো,নীল, ¤ঋতু: বর্ষা, শীত ¤ পাখি: মাছরাঙা,ঘুঘু ¤ পতঙ্গ: প্রজাপতি,ঘাসফড়িং ¤ অনুষঙ্গ: মোবাইলফোন , , ,¤ খেলা:(ফুটবল,ক্রিকেট)� , , ,, →যা কিছু অপছন্দ←� , , , ¤ মিথ্যা ¤ পরনিন্দ ¤বাচালতা ¤কটুকথা ¤ মুখোশধারী মানুষ ¤ লোভ ¤ স্বার্থপরতা ¤ অবক্ষয় ¤ হিংসা ¤ পরাজয় ¤ নির্মমতা ¤ করুণা� →যা দেখতে পছন্দ করি← , , �¤ মেয়েদেরকালো চুল,ঠোঁট আর চোখ ¤ নীল আকাশ¤ রাতের চাঁদ তাঁরা¤ বৃষ্টি সবুজ মাঠ� , , →যা দেখতে পারি না ←� , , ¤ কেউ কথা দিয়ে কথা না রাখলে ¤ ভাবওয়ালা মেয়ে¤ প্রয়োজনে পাশে নাথাকলে ¤ মিথ্যা কথা বল্লে ¤ বেঈমানী করলে� , →অবসর সময় যেভাবে কাটে←� ¤একা থেকেই কেটে যায় বেশির ভাগসময় ¤ফেছবুক ¤মোবাইল গেইম ¤হেডফোন দিয়ে গান শুনি টাইম পাছকরি ¤বন্ধুদেরসাথে কার্ড খেলি�→ পছন্দের ব্যক্তিবর্গ←� ¤হযরত মুহাম্মদ (সঃ) ¤বাবা, মা ¤শিক্ষক ¤বন্ধু-বান্ধব , , �→পছন্দের লেখক←� ¤কাজী নজরুল ইসলাম ¤হুমায়ূন আহমেদ¤ →পছন্দের খেলা←�¤ক্রিকেট¤ফুটবল¤লুডু¤কুতকুত¤�→আমার প্রিও খেলোয়ার←�¤মুশফিকুর রহিম ¤তামিম ইকবাল¤সাকিব আল হাসান¤মে☞••আমি তারই বন্ধুযার কোনো বন্ধু নেই…�☞••আমার কথা গুলো তারসাথেইশেয়ার করবো„যার কথা গুলো শুনারমানুষ নেই…���
প্রিয় উক্তি: ১) সবাইকে সব সময় সব কিছু বলা বন্ধ করুন। তা সে যত আপন মানুষই হোক না কেন? কেননা নিজের কষ্ট ,দুর্বলতা প্রকাশ করা মানে ওই আপন জনের কাছ থেকে কষ্ট পাওয়ার জন্য আরেকটা বাঁশঝাড় তৈরি করা। ২) নিজেকে অন্যদের সাথে তুলনা বন্ধ করুন। ৩) কে আপনাকে নিয়ে কী ভাবল সেটা নিয়ে চিন্তা করা একদম বাদ দিন। ৪) অপেক্ষা বন্ধ করে, যা করার সেটা নিজেই করে ফেলুন। বিষয় যাই হোক না কেন যা বলতে চান, যা করতে চান সেটা করে ফেলুন। ৫) প্রিয় মানুষটিকে সন্দেহ করা বন্ধ করুন। নিজের ক্ষমতার ওপরেও সন্দেহ রাখবেন না।৷ ৬) নিজের জন্য করুন, অনুভব করার বিষয়টি বাদ দিন। আপনি যেমন আছেন, চমৎকার আছেন। নিজেকে নিয়ে কষ্ট পাবেন না।৷ ৭) একা একা বিষণ্ণ হয়ে থাকার অভ্যাসটা বদলে ফেলুন। ৮) অপরাধ বোধে ভোগা, কোন কারণে নিজেকে দোষী ভেবে দোষারোপ করতে থাকার ব্যাপারটিও বাদ দিন। অন্যায় আমরা সকলেই করি। পুরনো অন্যায় নিয়ে নিজেকে নতুন বছরে কষ্ট দেবেন না। বরং চেষ্টা করবেন সেগুলো যেন পুনরাই না ঘটে। ৯) নিজেই নিজের ক্ষতি করবেন না। আপনার শরীর ও মনের ক্ষতি হয়, এমন কাজগুলো বাদ দিন এখন থেকেই। ১০) জীবনে টাকাই সব, এমন ভাবনাও বাদ দিন। টাকার চাইতে অনেক বেশি গুরুত্বপূর্ণ সুখী হওয়া, এই কথায় মন দিন। টাকাতে সুখ নাই যেদিন টাকাওয়ালা হবেন,,, সেদিন বুঝবেন ? ১১) কারো বা পরিস্থিতির চাপে পড়ে সিদ্ধান্ত নেয়া ত্যাগ করুন। সেটাই করুন, যেটা করতে আপনার মন ও মস্তিষ্ক সমর্থন দেয়। ১২) জীবনের সব কিছুকে প্রতিযোগিতা ভাবা বাদ দিন। একটাই জীবনে, ইঁদুর দৌড়ে সময় নষ্ট করার মানে নেই। নিজের কাজ মন দিয়ে করতে থাকুন, সফলতা অবশ্যই পাবেন। ১৩) সর্বদা “ হ্যাঁ ” বলার অভ্যাস বাদ দিন। নিজের প্রয়োজনে অন্যকে “ না ” বলতে শিখুন।৷ ১৪) জীবনে সবকিছু পারফেক্ট হতে হবে। প্রথম চেষ্টাতেই সফল হতে হবে এমনটা ভাববেন না। ১৫) অন্যের অন্ধ অনুকরণ করা বন্ধ করুন।৷ #পৃথিবীর বিখ্যাত লোকদের কিছু বিখ্যাত উক্তি যা আমাদের জীবনে প্রয়োগ করলে হয়তো আমাদের জীবন অনেক সুন্দর হয়ে উঠবে। “ মাত্র দুটি পন্থায় সফল হওয়া যায়! একটি হচ্ছে সঠিক লক্ষ্য নির্ধারণ করা, ঠিক যা তুমি করতে চাও। আর দ্বিতীয়টি হচ্ছে, সেই লক্ষ্যে কাজ করে যাওয়া॥ ” —মারিও কুওমো। “ অনুকরণ নয়, অনুসরণ নয়, নিজেকে খুঁজুন, নিজেকে জানুন, নিজের পথে চলুন॥ ” —ডেল কার্নেগি। “ হ্যাঁ এবং না কথা দুটো সবচেয়ে পুরনো এবং সবচেয়ে ছোট। কিন্তু এ কথা দুটো বলতেই সবচেয়ে বেশি ভাবতে হয়॥ ” —পীথাগোরাস। “ ঝগড়া চরমে পৌঁছার আগেই ক্ষান্ত হও॥ ” —হযরত সোলায়মান (আঃ)। “ তুমি যদি কোনো লোককে জানতে চাও, তা হলে তাকে প্রথমে ভালবাসতে শেখো॥ ” —লেলিন। “ একজন আহত ব্যক্তি তার যন্ত্রনা যত সহজে ভুলে যায়, একজন অপমানিত ব্যক্তি তত সহজে অপমান ভোলে না॥ ” —জর্জ লিললো। “ দুর্ভাগ্যবান তারাই যাদের প্রকৃত বন্ধু নেই॥ ” —অ্যারিস্টটল। “ বিশ্বাস জীবনকে গতিময়তা দান করে, আর অবিশ্বাস জীবনকে দুর্বিষহ করে তোলে॥ ” —মিল্টন। “ আল্লাহর ভয় মানুষকে সকল ভয় হতে মুক্তি দেয়॥ ” —ইবনে সিনা। “ স্বপ্নপূরণই জীবনের একমাত্র লক্ষ্য নয়। তাই বলে, স্বপ্নকে ত্যাগ করে নয়, তাকে সঙ্গে নিয়ে চলো। স্বপ্ন ছাড়া জীবন অর্থহীন॥ ” —ব্রায়ান ডাইসন। “ এই পৃথিবী কখনো খারাপ মানুষের খারাপ কর্মের জন্য ধ্বংস হবে না। যারা খারাপ মানুষের খারাপ কর্ম দেখেও কিছু করেনা তাদের জন্যই পৃথিবী ধ্বংস হবে॥ ” —আইনস্টাইন। “ নতুন দিনই নতুন চাহিদা ও নতুন দৃষ্টিভঙ্গির জন্ম দেয়॥ ” —জন লিভেগেট। “ যেখানে পরিশ্রম নেই সেখানে সাফল্যও নেই॥ ” —উইলিয়াম ল্যাংলয়েড। “ সত্য একবার বলতে হয়; সত্য বারবার বললে মিথ্যার মতো শোনায়। মিথ্যা বারবার বলতে হয়; মিথ্যা বারবার বললে সত্য ৰলে মনে হয়॥ ” —হুমায়ূন আজাদ। “ যে নিজেকে অক্ষম ভাবে, তাকে কেউ সাহায্য করতে পারে না॥ ” —জন এন্ডারসন। “ চিন্তা কর বেশি, বল অল্প এবং লেখ তার চেয়েও কম॥ ” —জন রে। “ সবচেয়ে কঠিন কাজ হচ্ছে নিজেকে চেনা এবং সবচেয়ে সহজ কাজ হচ্ছে অন্যদেরকে উপদেশ দেয়া॥ ” —থেলিস। “ যে নিজেকে দমন করতে পারে না সে নিজের জন্যেও বিপদজনক এবং অন্য সবার জন্যেও॥ ” —থেলিস। “ সফলতা সুখের চাবিকাঠি নয় বরং সুখ হল সফলতার চাবিকাঠি। আপনার কাজকে যদি আপনি মনে প্রানে ভালবাসতে পারেন অর্থাৎ যদি আপনি নিজের কাজ নিয়ে সুখী হন তবে আপনি অবশ্যই সফল হবেন॥ ” —Albert Schweitzer. “ আমি বলবনা আমি ১০০০ বার হেরেছি, আমি বলবো যে আমি হারার ১০০০ টি কারণ বের করেছি॥ ” —টমাস আলভা এডিসন। “ যে বিজ্ঞানকে অল্প জানবে সে নাস্তিক হবে, আর যে ভালো ভাবে বিজ্ঞানকে জানবে সে অবশ্যই ঈশ্বরে বিশ্বাসী হবে॥ ” —ফ্রান্সিস বেকন। “ সত্যকে ভালবাস কিন্তু ভুলকে ক্ষমা কর॥ ” —ভলতেয়ার। “ আমি স্বপ্ন দেখেছিলাম, সেইস্বপ্নে আস্থা ছিল। আর আমি কাজটা ভালোবাসতাম। ফেসবুক বিফল হলেও আমার ভালোবাসাটা থাকত। জীবনে একটা স্বপ্ন থাকতে হয়, সেই স্বপ্নকে ভালোও বাসতে হয়॥ ” —মার্ক জুকারবার্গ। “ যে পরিশ্রমী সে অন্যের সহানুভূতির প্রত্যাশী নয়॥ ” —এডমণ্ড বার্ক। “ পৃথিবীতে সবাই জিনিয়াস; কিন্তু আপনি যদি ১ টি মাছকে তার গাছ বেয়ে উঠার সামর্থ্যের উপর বিচার করেন তাহলে সে সারা জীবন নিজেকে শুধু অপদার্থই ভেবে যাবে॥ ” —আইনস্টাইন। “ আমি ব্যর্থতা কে মেনে নিতে পারি কিন্তু আমি চেষ্টা না করাকে মেনে নিতে পারিনা॥ ” —মাইকেল জর্ডান। “ প্রত্যেককে বিশ্বাস করা বিপদজনক; কিন্তু কাউকে বিশ্বাস না করা আরো বেশী বিপদজনক॥ ” —আব্রাহাম লিংকন। ‘‘ যারা আমাকে সাহায্য করতে মানা করে দিয়েছিল আমি তাদের প্রতি কৃতজ্ঞ। কারন তাদের ‘না’ এর জন্যই আজ আমি নিজের কাজ নিজে করতে শিখেছি॥ ’’ —আইনস্টাইন। “ যারা বলে অসম্ভব, অসম্ভব তাদের দুয়ারেই বেশি হানা দেয়॥ ” —জন সার্কল। “ আমরা ভাবি দেশে যত ছেলে পাশ হচ্ছে তত শিক্ষার বিস্তার হচ্ছে। পাশ করা আর শিক্ষিত হওয়া এক বস্তু নয়, এ সত্য স্বীকার করতে আমরা কুন্ঠিত হই॥ ” —প্রমথ চৌধুরী। “ তোমার বন্ধু হচ্ছে সে, যে তোমার সব খারাপ দিক জানে; তবুও তোমাকে পছন্দ করে॥ ” —অ্যালবার্ট হুবার্ড। “ স্কুলে যা শেখানো হয়, তার সবটুকুই ভুলে যাবার পর যা থাকে; তাই হলো শিক্ষা॥ ” —অ্যালবার্ট আইনস্টাইন। “ আমি আপনাকে কখনও ভালবাসতে না বলে যুদ্ধ করতে বলি। কারণ যুদ্ধে হয় আপনি বাঁচবেন না হয় মরবেন। কিন্তু ভালবাসাতে না পারবেন বাঁচতে; না মরতে॥ ” —এডলফ হিটলার। “ যারা কাপুরুষ তারাই ভাগ্যের দিকে চেয়ে থাকে, পুরুষ চায় নিজের শক্তির দিকে। তোমার বাহু, তোমার মাথা তোমাকে টেনে তুলবে, তোমার কপাল নয়॥ ” —ডঃ লুৎফর রহমান। “ বাঙালি সমালোচনা সহ্য করে না; নিজেকে কখনো সংশোধন করেনা। নিজের দোষত্রুটি সংশোধন না করে সেগুলোকে বাড়ানোকেই বাঙালি মনে করে সমালোচনার যথাযথ উত্তর॥ ” —হুমায়ুন আজাদ। “ কাল আমার পরীক্ষা। কিন্তু এটা আমার কাছে বিশেষ কোন ব্যাপারই না, কারন শুধুমাত্র পরীক্ষার খাতার কয়েকটা পাতাই আমার ভবিষ্যৎ নির্ধারন করতে পারেনা॥ ” —টমাস আলভা এডিসন। “ সবাই অনেকদিন বাঁচতে চায়, কিন্তু কেউই বুড়ো হতে চায় না॥ ” —জোনাথন সুইফট। “ ছেলেদের মদ্ধে বন্ধুত্ব নষ্টের অন্যতম দুইটি কারণ- টাকা এবং মেয়ে। সব সময় এই দুইটি জিনিস বন্ধুত্ব থেকে দূরে রাখতে চেষ্টা করুন॥ ” “ পৃথিবী জুড়ে প্রতিটি নরনারী এখন মনে করে তাদের জীবন ব্যর্থ, কেননা তারা অভিনেতা বা অভিনেত্রী হতে পারেনি॥ ” —হুমায়ুন আজাদ। “ তুমি যখন প্রেমে পড়বে তখন আর তোমার ঘুমাতে ইচ্ছে করবেনা; কারণ তখন তোমার বাস্তব জীবন স্বপ্নের চেয়ে আনন্দময় হবে॥ ” —Dr. Seuss. “ একবার পরীক্ষায় কয়েকটা বিষয়ে আমি ফেল করেছিলাম কিন্তু আমার বন্ধু সব বিষয়েই পাশ করে। এখন সে মাইক্রোসফটের একজন ইঞ্জিনিয়ার আর আমি মাইক্রোসফটের প্রতিষ্ঠাতা॥ ” —বিল গেটস। “ টাকার বিনিময়ে শিক্ষা অর্জনের চেয়ে অশিক্ষিত থাকা ভাল॥ ” —সক্রেটিস। “ জন্মদিনের উৎসব পালন করাটা বোকামি। জীবন থেকে একটা বছর ঝরে গেল, সে জন্যে অনুতাপ করাই উচিত॥ ” —নরম্যান বি.হল।
ফেসবুক আইডি: www.Facebook.com/bangladeshi.write

"মোঃ জিহাদ হোসেন" র কার্যক্রম

স্কোরঃ 935 পয়েন্ট (র‌্যাংক # 259 )
প্রশ্নঃ 150
উত্তরঃ 263 (10 সর্বোত্তম হিসাবে নির্বাচন করেছেন)
মন্তব্যসমূহঃ 183
পছন্দ করেছেনঃ 37 টি উত্তর
দান করেছেন: 37 পছন্দ, 0 অপছন্দ
পেয়েছেনঃ 16 পছন্দ, 0 অপছন্দ
Bumps performed: 11

Wall for মোঃ জিহাদ হোসেন

Please log in or register to post on this wall.
ভাইজান, আপনার প্রোফাইলটা লিখতে কয় ঘন্টা লেগেছিল?
20 জুন করেছেন জাহিন আব্দুল্লাহ

ব্যাজগুলি

ব্রোঞ্জ

ছবি x 1
পাঠক x 1
উল্লেখযোগ্য প্রশ্ন x 100
যাচাইকৃত মানব x 1
দর্শক x 1
আত্মজীবনী-রচয়িতা x 1
উত্তরদাতা x 1
প্রশ্নকর্তা x 1
কৃতজ্ঞ x 1
সম্পাদক x 1
আগ্রহী x 1
মন্তব্যকারী x 1
৫০০ ক্লাব x 1
ভোটার x 1
নিয়মিত x 1
প্রতিভাধর x 1
পাহরাদার x 1

রূপা

ক্ষুধিত পাঠক x 1
জনপ্রিয় প্রশ্ন x 37
ভাষ্যকার x 1
অনুলিপি সম্পাদক x 1
পুরাতন x 1
Trouper x 1
প্রশ্নকারীকে x 1
বক্তা x 1
প্রজ্ঞাময় x 1
গোয়েন্দা x 1

সোনা

পিপাসু পাঠক x 1
বহুদর্শী x 1
তদন্তকারী x 1
বিখ্যাত প্রশ্ন x 2
উপদেশক x 1
...