বিস্ময় অ্যানসারস এ আপনাকে সুস্বাগতম। এখানে আপনি প্রশ্ন করতে পারবেন এবং বিস্ময় পরিবারের অন্যান্য সদস্যদের নিকট থেকে উত্তর পেতে পারবেন। বিস্তারিত জানতে এখানে ক্লিক করুন...
48 জন দেখেছেন
"ঈমান ও আক্বীদা" বিভাগে করেছেন (-2 পয়েন্ট)

4 উত্তর

+1 টি পছন্দ
করেছেন (1,061 পয়েন্ট)
যারা অন্তরে, কথায় ও কাজে এই তিন দিক হতে আল্লাহ ও আল্লাহর রাসূল (সাঃ)-কে ভালোবাসে, কুরআন ও হাদীস মোতাবেক চলাফেরা করে এবং ধার্মিক ও শক্ত ঈমানের অধিকারী হয়, তাদেরকে মুমিন বলে। ধন‍্যবাদ।
0 টি পছন্দ
করেছেন (1,839 পয়েন্ট)
আল্লাহ কে এক মানার সাথে সাথেই একজন ইসলামের ছায়ায় আসেন, তিনি মুসলিম। তিনি ইসলামের মৌলিক বিশ্বাসগুলো বুকে ধারণ করেন। তারপর যারা ভালো মুসলিম তারা মুমিন, তাদের মধ্যে কুরআনে উল্লেখিত নানা গুণাবলী থাকে। মুমিনের বৈশিষ্ট্য আরো সুনির্দিষ্ট, এবং ইসলামে তাই মুমিনদের উচ্চতর মর্যাদা দেয়া হয়েছে। মুমিনকে চেনা যায় তার ঈমান দিয়ে, তার অন্তরের বিশ্বাস, মুখের উচ্চারণ এবং তার কাজকর্মে আল্লাহর আদেশের প্রতি নিষ্ঠা দিয়ে। মুমিন হিসেবে তার মর্যাদা বৃদ্ধি পায় ভালো কাজে। [সংরক্ষিত]
0 টি পছন্দ
করেছেন (28 পয়েন্ট)
মুমিন হলো যারা আল্লার আদেশ নির্দেশ ও রাসূলের সুন্নাত পালন করেন একমাত্র তারাই মুমিন।     
0 টি পছন্দ
করেছেন (4,768 পয়েন্ট)

পবিত্র কুরআনে মহান আল্লাহ তাআলা ইরশাদ করেন,  মুমিনগণ সফলকাম হয়ে গেছে;যারা নিজেদের নামাযে বিনয়-নম্র; যারা অনর্থক কথা-বার্তা নির্লিপ্ত; যারা যাকাত দান করে থাকে; এবং যারা নিজেদের যৌনাঙ্গকে সংযত রাখে; তবে তাদের স্ত্রী ও মালিকানাভুক্ত দাসীদের ক্ষেত্রে সংযত না রাখলে তারা তিরস্কৃত হবে না; অতঃপর কেউ এদেরকে ছাড়া অন্যকে কামনা করলে তারা সীমালংঘনকারী হবে; এবং যারা আমানত ও অঙ্গীকার সম্পর্কে হুশিয়ার থাকে; এবং যারা তাদের নামাযসমূহের খবর রাখে। -সুরা মুমিনুন: ১-৯

অন্য স্থানে তিনি বলেন, আপনার কাছে জিজ্ঞেস করে, গনীমতের হুকুম। বলে দিন, গণীমতের মাল হল আল্লাহর এবং রসূলের। অতএব, তোমরা আল্লাহকে ভয় কর এবং নিজেদের অবস্থা সংশোধন করে নাও। আর আল্লাহ এবং তাঁর রসূলের হুকুম মান্য কর, যদি ঈমানদার হয়ে থাক। যারা ঈমানদার, তারা এমন যে, যখন আল্লাহর নাম নেয়া হয় তখন ভীত হয়ে পড়ে তাদের অন্তর। আর যখন তাদের সামনে পাঠ করা হয় কালাম, তখন তাদের ঈমান বেড়ে যায় এবং তারা স্বীয় পরওয়ার দেগারের প্রতি ভরসা পোষণ করে। সে সমস্ত লোক যারা নামায প্রতিষ্ঠা করে এবং আমি তাদেরকে যে রুযী দিয়েছি তা থেকে ব্যয় করে। তারাই হল সত্যিকার ঈমানদার! তাদের জন্য রয়েছে স্বীয় পরওয়ারদেগারের নিকট মর্যাদা, ক্ষমা এবং সম্মানজনক রুযী। সূরা আনফাল, ১/৪

রাসূল সা. হাদীসে মুমিনের বিভিন্ন পরিচয় তুলে ধরেছেন।  যেমন রাসূল সা. ইরশাদ করেন-

১) যাদের চরিত্র উত্তম, তারাই পূর্ণ ঈমানদার। -সুনানে আবু দাউদ; হা. নং ৪৬৮২

২) মুমিন লোকেরা ঈষৎ অন্যমনষ্ক ও উদার হয়ে থাকে, আর পাপীরা হয় ধূর্ত, বদমাশ ও কৃপণ প্রকৃতির। -সুনানে আবু দাউদ; হা. নং ৪৭৯০

এভাবে বিভিন্ন আয়াত ও  হাদীসে মুমিনের পরিচয় তুলে ধরা হয়েছে। বিস্তারিত জানতে কুরআন ও  হাদীসগ্রন্থাদীর ঈমান সংশ্লিষ্ট অধ্যায় ভাল করে অধ্যায়ন করুন। ধন্যবাদ।

সম্পর্কিত প্রশ্নগুচ্ছ

1 উত্তর
27 ফেব্রুয়ারি "ঈমান ও আক্বীদা" বিভাগে জিজ্ঞাসা করেছেন Kaes Ali (5 পয়েন্ট)
2 টি উত্তর
12 জুলাই 2015 "ঈমান ও আক্বীদা" বিভাগে জিজ্ঞাসা করেছেন রহমান-আলি (127 পয়েন্ট)
1 উত্তর
16 মে 2013 "ঈমান ও আক্বীদা" বিভাগে জিজ্ঞাসা করেছেন manik (1,015 পয়েন্ট)

293,491 টি প্রশ্ন

379,972 টি উত্তর

114,846 টি মন্তব্য

161,084 জন নিবন্ধিত সদস্য

বিস্ময় বাংলা ভাষায় সমস্যা সমাধানের একটি নির্ভরযোগ্য মাধ্যম। এখানে আপনি আপনার প্রশ্ন করার পাশাপাশি অন্যদের প্রশ্নে উত্তর প্রদান করে অবদান রাখতে পারেন অনলাইনে বিভিন্ন সমস্যার সমাধানের জন্য সবথেকে বড় এবং উন্মুক্ত তথ্যভাণ্ডার গড়ে তোলার কাজে।
...