বিস্ময় অ্যানসারস এ আপনাকে সুস্বাগতম। এখানে আপনি প্রশ্ন করতে পারবেন এবং বিস্ময় পরিবারের অন্যান্য সদস্যদের নিকট থেকে উত্তর পেতে পারবেন। বিস্তারিত জানতে এখানে ক্লিক করুন...
182 জন দেখেছেন
"দুয়া ও যিকির" বিভাগে করেছেন (98 পয়েন্ট)
বন্ধ
করেছেন (4,777 পয়েন্ট)

দুনিয়ায় মানুষ কমবেশি কোনো না কোনো বিপদ, মসিবত ও পেরেশানিতে পড়ে। এটা নতুন কিছু নয়। পূর্ব যুগেও বিপদ ছিল এখনও আছে। তবে মানুষের এমন বিপদাপদ থেকে মুক্তি লাভের উপায় হিসেবে শেষ নবী হজরত মুহাম্মদ (সা.) উম্মতকে বিভিন্ন সময় বিভিন্ন দোয়া শিখিয়েছেন। সেখান থেকে কয়েকটি ছোট ও উপকারী দোয়া উল্লেখ করা হলো
**হজরত সাদ ইবনে আবী ওয়াক্কাস (রা.) থেকে বর্ণিত, নবী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম বলেন কেউ দুঃখ-কষ্টের সময় এই দুআটি পাঠ করলে আল্লাহ তার মুসিবত দূর করেন,  لا إله إلا أنت سبحانك إني كنت من الظالمين
অর্থ : একমাত্র তুমি ছাড়া কোনো মাবুদ নেই। তোমার পবিত্রতা বর্ণনা করছি। নিশ্চয় আমি সীমা লঙ্ঘনকারী। -জামে তিরমিজি, হাদিস- ৩৫০
এই দোয়া ছাড়াও আরও বেশ কিছু দোয়া রয়েছে, যেগুলোর পাঠে মানুষ অনেক ফজিলতের অধিকারী হয়, সৌভাগ্যের অধিকারী হয়।
**তেমনি আরেকটি দোয়া হাদিসে বর্ণিত হয়েছে। ইরশাদ হচ্ছে, হজরত আসমা বিনতে ওমাইর (রা.) থেকে বর্ণিত, নবী করিম (সা.) বলেন, আমি কি তোমাকে এমন কিছু শিখিয়ে দিবো না- যা তুমি দুশ্চিন্তা ও পেরেশানির মধ্যে পড়বে। আর তা হচ্ছে الله الله ربي لا أشرك به شيئا "
অর্থ : আল্লাহই আল্লাহ আমার প্রতিপালক। আমি তার সঙ্গে কোনো কিছু শরিক করি না। -সুনানে আবু দাউদ, হাদিস- ১৫২৫, সুনানে ইবনে মাযা, হাদিস-৩৮৮২
** আরেক হাদিসে বর্ণিত হয়েছে, হজরত আনাস (রা.) থেকে বর্ণিত, নবী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম বলেন,

اللهم لا سهل إلا ما جعلته سهلا وأنت تجعل الحزن سهلا إذا شئت

অর্থ : ইয়া আল্লাহ! কোনো বিষয় সহজ নয়। হ্যাঁ, যাকে তুমি সহজ করে দাও। যখন তুমি চাও তখন তুমি মুশকিলকে  সহজ করে দাও। -সহিহ ইবনে হিব্বান, হাদিস- ৯৭৪

তাই এ জাতীয় ছোট ছোট দুআ বেশি বেশি পাঠ করলে এবং নিজেদের অভ্যাসে পরিণত করলে আশা করা যায় মহান আল্লাহতায়ালা আমাদের সব ধরনের বিপদ-আপদ থেকে রক্ষা করবেন। 


3 উত্তর

+1 টি পছন্দ
করেছেন (6,712 পয়েন্ট)
 
সর্বোত্তম উত্তর
যখনই কোন বিপদ দেখা দিত তখন রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম এই দুআ পড়তেনঃ

اللَّهُمَّ إِنِّي أَعُوذُ بِكَ مِنَ الْهَمِّ وَالْحَزَنِ وَالْعَجْزِ وَالْكَسَلِ وَالْبُخْلِ وَالْجُبْنِ وَضَلَعِ الدَّيْنِ وَغَلَبَةِ الرِّجَالِ ‏

হে আল্লাহ! আমি দুশ্চিন্তা, পেরেশানী, অপারগতা, অলসতা, কৃপণতা, কাপুরুষতা, ঋণের বোঝা এবং মানুষের আধিপত্য থেকে আপনার আশ্রয় প্রার্থনা করছি। (সহীহ বুখারী, হাদিস নম্বরঃ ৬৩৬৩)

রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম পেরেশানীর সময় এই দুআ পড়তেনঃ

لاَ إِلَهَ إِلاَّ اللَّهُ الْعَلِيُّ الْحَلِيمُ لاَ إِلَهَ إِلاَّ اللَّهُ رَبُّ الْعَرْشِ الْعَظِيمِ لاَ إِلَهَ إِلاَّ اللَّهُ رَبُّ السَّمَوَاتِ وَالأَرْضِ وَرَبُّ الْعَرْشِ الْكَرِيمِ

(সূনান তিরমিজী হাদিস নম্বরঃ ৩৪৩৫)

এছাড়া বিপদ আপদ দুঃখ-কষ্টের সময় ‘দোয়া ইউনুস’ পাঠ করতে পারেনঃ

লা- ইলাহা ইল্লা আনতা সুবহানাকা ইন্নি কুনতু মিনাজ জোয়ালিমিন।

বিপদের সময় বেশি বেশি আল্লাহর জিকির করলে বিপদ থেকে মুক্তি লাভ করা যায়। বিপদ আপদ মানব জীবনের অংশবিশেষ। তাই বিপদ আপদে ধৈর্য্যধারণ করতে হবে এবং নিজেকে আল্লাহর হাওলায় সোপর্দ করে দিতে হবে। বিপদ-মসিবত থেকে বেঁচে থাকতে এই দোয়াটিও পাঠ করা যেতে পারেঃ

ইন্নালিল্লাহি ওয়া ইন্না ইলাইহি রাজিউন, আল্লাহুম্মা আজিরনি ফি মুসিবাতি ওয়া আখলিফ-লি খাইরাম মিনহা।

[লা হাওলা ওয়ালা কুওয়াতা ইল্লা বিল্লাহ। মহান আল্লাহর সাহায্য ও সহায়তা ছাড়া আর কোন আশ্রয় ও সাহায্য নেই।]
0 টি পছন্দ
করেছেন (1,081 পয়েন্ট)
আল্লাহুম্মা ইন্নি আউযুবিকা মিনাল হাম্মি ওয়াল হুযনি। ওয়া আউযুবিকা মিনাল আজযি ওয়াল কাসালি। ওয়া আউযুবিকা মিনাল বুখলি ওয়াল যুবনি। ওয়া আউযুবিকা মিন গালাবাতিত দাইনি ওয়া কাহরির রিজাল।
0 টি পছন্দ
করেছেন (735 পয়েন্ট)
চিন্তা থেকে হেফাজতের দু'আ

حَسْبِيَ اللهُ لا إله إلا هو عَليه تَوَكّلْتُ وهو رَبُّ الْعَرشِ العَظِيْمِ

হাসবিয়্যাল্লা-হু লা-ইলাহা ইল্লা-হুওয়া আলাইহি তাওয়াক্কালতু ওয়াহুওয়া রাব্বুল আরশিল আযীম।

আল্লাহ্ই আমার জন্য যথেষ্ট, তিনি ব্যতীত কোন মা’বুদ নেই, তাঁর প্রতি ভরসা করেছি, তিনি মহান আরশের অধিপতি।আবু দাঊদ

হযরত আবু দারদা (রাযিঃ) বলেন, যে ব্যক্তি সকাল বিকাল সাতবারঃ

"حَسْبِيَ اللهُ لا إله إلا هو عَليه تَوَكّلْتُ وهو رَبُّ الْعَرشِ العَظِيْمِ"

সত্য দিলে (অর্থাৎ আখিরাতের প্রতি একিন রেখে) বলবে, অথবা ফজিলতের প্রতি একিন ছাড়া এমনিই বলবে, আল্লাহ্‌ তায়ালা তাকে (দুনিয়া আখিরাতের) সমস্ত চিন্তা হতে হেফাজত করবেন।

অর্থঃ 'আমার জন্য আল্লাহ্‌ তায়ালাই যথেষ্ট, তিনি ব্যতীত কোন মা'বুদ নাই, তাঁরই উপর আমি ভরসা করলাম, তিনিই আরশে আজীমের মালিক'

(আবু দাঊদ ৫০৮১)
টি উত্তর

সম্পর্কিত প্রশ্নগুচ্ছ

1 উত্তর
1 উত্তর
29 জানুয়ারি 2015 "ইসলাম" বিভাগে জিজ্ঞাসা করেছেন Ferdausi (5,276 পয়েন্ট)
1 উত্তর
15 মে 2013 "দুয়া ও যিকির" বিভাগে জিজ্ঞাসা করেছেন আরিফুল (6,252 পয়েন্ট)

299,090 টি প্রশ্ন

386,704 টি উত্তর

116,847 টি মন্তব্য

164,900 জন নিবন্ধিত সদস্য

বিস্ময় বাংলা ভাষায় সমস্যা সমাধানের একটি নির্ভরযোগ্য মাধ্যম। এখানে আপনি আপনার প্রশ্ন করার পাশাপাশি অন্যদের প্রশ্নে উত্তর প্রদান করে অবদান রাখতে পারেন অনলাইনে বিভিন্ন সমস্যার সমাধানের জন্য সবথেকে বড় এবং উন্মুক্ত তথ্যভাণ্ডার গড়ে তোলার কাজে।
...