বিস্ময় অ্যানসারস এ আপনাকে সুস্বাগতম। এখানে আপনি প্রশ্ন করতে পারবেন এবং বিস্ময় পরিবারের অন্যান্য সদস্যদের নিকট থেকে উত্তর পেতে পারবেন। বিস্তারিত জানতে এখানে ক্লিক করুন...
127 জন দেখেছেন
"রান্না" বিভাগে করেছেন (276 পয়েন্ট)
কীভাবে জিলাপি বানানোর হয়, যদি আপনি জেনে থাকেন তাহলে একটু দয়া কর বলুন। সব নিয়ম শুরু থেকে শেষ পর্যন্ত।
করেছেন (276 পয়েন্ট)
জিলাপি- উপকরণ: ১. মাষকলাই-এর ডাল- ২৫০ গ্রাম ২. চালের গুড়া- ১/৪ কাপ ৩. ময়দা- ১/৪ কাপ ৪. চিনি- ৩ কাপ ৫. ঘি- পরিমাণমতো (ভাজার জন্য) ৬. পানি- দুই কাপ ৭. গোলাপজল- ১ টেবিল চামচ (ইচ্ছানুসারে) প্রণালী: ১. প্রথমে ডালগুলোকে ৪-৫ ঘন্টা ভিজিয়ে রেখে দিতে হবে। ২. ৪-৫ ঘণ্টা পরে তুলে নিয়ে ভালো করে ধুয়ে নিতে হবে। এমনভাবে ধুয়ে নিতে হবে যাতে ডালের গায়ে কোনো খোসা না থাকে। ৩. এরপর ডালগুলোকে ভাল করে মিহি করে বেটে নিতে হবে। ৪. এরপরে একটি পাত্রে পানি নিয়ে নিতে হবে। তাতে একে একে চালের গুড়া এবং ময়দা দিয়ে ভাল করে মিশিয়ে নিয়ে হবে যেন দানা দানা বা গোটা না হয়ে থাকে। ৫. এরপরে এই মিশ্রণটি ৪ থেকে ৫ ঘণ্টার জন্য ভাল করে ঢেকে রেখে দিতে হবে। ৬. ৪ থেকে ৫ ঘণ্টা পরে মিশ্রণটি ঢাকনা সরিয়ে আবার একবার ভাল করে ফেটিয়ে মিশিয়ে নিতে হবে। ৭. ভাল করে ফেটানো হয়ে গেলে মিশ্রণটি চিকন মাথার ফানেলে বা আইসিং কোনে ভরে বড় নজল লাগিয়ে নিতে হবে। ৮. এরপরে ফ্রাইপ্যানে ঘি গরম করতে হবে। গরম হয়ে গেলে আড়াই প্যাচ দিয়ে জিলাপি মাঝারি আচে মচমচে করে ভাজতে হবে। একবারে না পারলে দুই একবার শেখার জন্য হাত চালিয়ে দেখে নিন জিলাপির শেপ ঠিক হচ্ছে কি না। ঠিক মত না হলে চাইলে নিজের মত করেও শেপ দিতে পারেন। এতে নতুনত্ব আসবে অনেক। ৯. অপর চুলায় আরেকটি পাত্রে পানি ও চিনি মিশিয়ে নিয়ে জ্বাল দিয়ে শিরা তৈরি করতে হবে। ১০. জিলাপি মচমচে করে ভাজা হয়ে গেলে সাথে সাথে উঠিয়ে নিয়ে চিনির সিরায় কিছুক্ষণ ডুবিয়ে রাখতে হবে। সিরা থেকে ঝাজরিতে করে উঠিয়ে হালকা রসের সাথে জিলাপি পরিবেশন করতে হবে।

1 উত্তর

+1 টি পছন্দ
করেছেন (3,792 পয়েন্ট)

জিলাপি বানানোর জন্য প্রয়োজনীয় উপকরন ও পরিমাণ

(এটা ঘরে বানানোর জন্য দেয়া অনুপাত)

– এক কেজি সাদা আটা (কিছুতেই ময়দা নয়)

– ১০০ গ্রাম বেশন (বেশি দেয়া চলবে না)

– পানি (তরল বানাতে যা লাগে, চিনির সিরাতেও পানি লাগে)

– তেল (আপনি যে কাড়াইতে ভাঁজবেন সেই পরিমান, ডুবো তেলে ভাজতে হয়)

– চিনির সিরা (পরিমান নিজেই নির্ধারন করে নিন, সিরা গাঢ় হতে হবে)

প্রনালীঃ

১. উপরের পরিমান মত আটা এবং বেশন ভাল করে মিশিয়ে নিন। এবার পানি দিতে থাকুন এবং মিশাতে থাকুন। এই তরলটা এমন হবে যে, না শক্ত না বেশি তরল। যত ভাল করে মিশিয়ে এই তরল বানাবেন জিলাপী ততই জিলাপী মশৃন ও ভাল হবে। বড় চামচ দিয়ে তরল তুলে উপর থেকে নিচে ছাড়ুন, পরার গতিটা খুব কম নয় আবার বেশীও হবে না। (যদি কম বেশি হয় তবে পানি বা আটা দিয়ে ঠিক করে নেবেন)

২. চিনির সিরাঃ এদিকে এভাবে কাই বানিয়ে রেখে অন্য একটা বড় হাড়িতে চিনির সিরা বানাতে হবে। পানিতে চিনি দিয়ে ভাল করে গুলে (মিশিয়ে) চুলায় গরম করতে হবে এবং বার বার নাড়িয়ে চিনির সিরা গাঢ় করে নিতে হবে। এই তরল সিরাও না বেশি গাঢ় না বেশী তরল হবে। সিরা হয়ে গেলে পাশে রেখে ঠান্ডা করে নিন। জিলাপী ভেজে পরে এই ঠান্ডা সিরায় রাখা হবে।

৩. কাই বা তরল হয়ে গেলে চুলায় তেল গরম করতে থাকুন। এবং বিশেষ ভাবে শক্ত কাপড়ের চার কোনার একটা কাপড় লাগে। এই চার কোনার কাপড় টার মাঝে একটা ফুটো আছে, এই ফুটোর সাইজেই জিলাপীর ডায়া হয়ে থাকে (মোটা চিকন জিলাপীর এটাই টেকনিক)। একটা বোলে এই কাপড়টা রেখে তাতে কাই ঢেলে নিতে হবে।

৪. এবং গরম তেলে এভাবে কাপড়ে রাখা কাই বা তরল ঘুরিয়ে ঘুরিয়ে পেঁচিয়ে পেঁচিয়ে দিতে হবে। এটা একটা ওস্তাদি কাজ, অভিজ্ঞতায় হাতের নিপুণতা বাড়ে। জিলাপী বানাতে বড় চওড়া তেলের তাওয়া লাগে। যাতে করে তেলে ডুবিয়ে জিলাপী ভাজা যায় এবং তাপ সমভাবে সব জিলাপীতে লাগে।

৫. এবার এক পাশ হয়ে গেলে অন্য পাশ উল্টে দিন।

৬. ভাজা হয়ে গেলে মানে সোনালী রঙ এসে গেলে তুলে চিনির সিরায় রাখুন। উঠানোর সময় জোড়া লেগে থাকা জিলাপী গুলো সাইজ মত ভেঙ্গে দিন এবং সেভাবে তুলে নিন।

৭. ঠান্ডা চিনির সিরায় মিনিট ২/৩ ভিজিয়ে রাখুন, কিছুতেই এর বেশী সময় নয়। বেশি সময় রাখলে জিলাপী নরম (ওদানো) হয়ে যেতে পারে।
৮. এবার সরাসরি জিলাপী গুলো তুলে রাখার স্থানে রাখুন। গরম জিলাপীতে হাত দিতে সাবধান, গরম জিলাপী খেতেও সাবধান!

ব্যস হয়ে গেল। এবার বাসায় অতিথির সাথে বা নিজেরা নিয়ে বসতে পারেন। রসালো এই জিলাপী খেতে এক হাতে জিলাপী মুখে পুরুন এবং অন্য হাত থুথনির নিচে ধরুন, রস যেন মাটিতে বা ফ্লোরে না পড়ে। টিস্যু থাকলে ভাল হয়!

জিলাপী বানাতে কিছু বিষয় অবশ্যই মনে রাখতে হবে:

* বেশন কিছুতেই বেশি দেয়া যাবে না, কারন এতে তেলে ভাজতে দিলেই সোনালী হয়ে যাবে। ভেজেই সোনালী রঙ্গে আনতে হবে। কালচে ও পোড়া পোড়া হবে না। কাই মিশানোটা খুব ভাল হতে হবে।

* ভেজে সিরাতে বেশি ক্ষন রাখা যাবে না, এতে জিলাপী তাড়াতাড়ি নরম হয়ে যাবে। নরম জিলাপী খেতে মজা নেই।

* জিলাপী বানানোর আধা ঘন্টার মধ্যেই পেটে চালান দিলে ভাল স্বাদ পাওয়া যায়।

সম্পর্কিত প্রশ্নগুচ্ছ

2 টি উত্তর
30 এপ্রিল 2016 "রান্না" বিভাগে জিজ্ঞাসা করেছেন ashraful hasan chand (21 পয়েন্ট)
1 উত্তর
2 টি উত্তর
23 অগাস্ট 2017 "রান্না" বিভাগে জিজ্ঞাসা করেছেন sanious.babu (11 পয়েন্ট)

311,549 টি প্রশ্ন

401,165 টি উত্তর

123,144 টি মন্তব্য

172,710 জন নিবন্ধিত সদস্য

বিস্ময় বাংলা ভাষায় সমস্যা সমাধানের একটি নির্ভরযোগ্য মাধ্যম। এখানে আপনি আপনার প্রশ্ন করার পাশাপাশি অন্যদের প্রশ্নে উত্তর প্রদান করে অবদান রাখতে পারেন অনলাইনে বিভিন্ন সমস্যার সমাধানের জন্য সবথেকে বড় এবং উন্মুক্ত তথ্যভাণ্ডার গড়ে তোলার কাজে।
...