বিস্ময় অ্যানসারস এ আপনাকে সুস্বাগতম। এখানে আপনি প্রশ্ন করতে পারবেন এবং বিস্ময় পরিবারের অন্যান্য সদস্যদের নিকট থেকে উত্তর পেতে পারবেন। বিস্তারিত জানতে এখানে ক্লিক করুন...
125 জন দেখেছেন
"সিয়াম" বিভাগে করেছেন (0 পয়েন্ট)
ধরুন রমজান মাসের একটি রোজা আমার ভেঙে গেছে। রমজানের পরবর্তীতে আমার কাজা রোজাটি ভেঙ্গে যায়। এখন আমার করনীয় কি ?
বন্ধ

2 উত্তর

0 টি পছন্দ
করেছেন (1,322 পয়েন্ট)
 
সর্বোত্তম উত্তর

ভেঙ্গে গেছে। এতটুকু দিয়ে বুঝা যাবে না।

কি কারণে কিভাবে ভাঙলেন তাও জানতে/জানাতে হবে।

একটির জন্য একটি তো রাখতেই হবে, সেটি  নিশ্চিত।


অবস্থা বুঝে এর কাফফারা ওয়াজিব হবে (১+৬০=৬১ টি রোযা রাখতে হবে।)

৬০ হচ্ছে কাফফারা, ১ হচ্ছে কাযা।


৬০ টি এক টানা রাখতে হবে। মহিলাদের ক্ষেত্রে মাসিকের সময় বিরতি পাবে। এছাড়া কোন কারণে একটি ছুটে গেলে আবার প্রথম থেকে গননা শুরু করতে হবে।


বিস্তারিত জানার জন্য রোযার কাযা ও কাফফারা বিষয়গুলো ভালভাবে অধ্যয়ন করুন।

0 টি পছন্দ
করেছেন (3,920 পয়েন্ট)
আমার জানামতে, কাযা রোযা ভঙ্গ হওয়াতে কোনো কাফফারা আসবে না। যেমনি কাযা নামায ভঙ্গ হলে, কোনো কিছু হয় না। বরং আবার পড়ে নিলে হয়। ঠিক তেমনি আপনার কাযা রোযা ভঙ্গ হওয়াতে কোনো সমস্যা হবে না এবং কাফফারাও আসবে না। 
করেছেন (5,630 পয়েন্ট)

  • রেফারেন্স কি
করেছেন (0 পয়েন্ট)
আপনার উত্তরটি যথার্থ মনে হচ্ছে না। কারণ নামাজ ও রোজা দুটি ভিন্ন। রোজা ভেঙ্গে গেলে কাযা আদায় করতে হবে। যদি কাজা রোজা ভেঙে যায় তবে তার কাফফারা হিসেবে শরীয়তে কি আমি ওই বিষয়টি জানতে চাচ্ছি। 
করেছেন (3,920 পয়েন্ট)

রমযানের কাযা দুইভাবে আদায় করা হয়। যথাঃ

  • একটির বদলে একটি। এরকম কাযা রোযা যদি ভেঙ্গে যায়, তাহলে ভেঙ্গে যাওয়া কাযা রোযার কাফফারা আসবে না। বরং পরবর্তীতে একটি রাখলে হবে।
  • আর, যদি একটির বদলে ৬০ টি রোযা একাধারে রাখা এমন রোযার কাযা হয়। তাহলে মধ্যখানের রোযা ভঙ্গ হওয়ার কারনে, আবার প্রথম থেকে রাখতে হবে।

আশাকরি বুঝেছেন।
করেছেন (3,920 পয়েন্ট)

এক কথায় কাযা রোযা ভঙ্গ হলে, ঐ কাযা রোযার কাফফারা আসবে না। বরং যে রোযার কাযা রাখতে শুরু করেছিলেন, সে রোযার কাযা আবার অন্যদিন আদায় করলেই হবে। 


রমযানের কাযা দুইভাবে আদায় করা হয়। যথাঃ

  • একটির বদলে একটি। এরকম কাযা রোযা যদি ভেঙ্গে যায়, তাহলে ভেঙ্গে যাওয়া কাযা রোযার কাফফারা আসবে না। বরং পরবর্তীতে একটি রাখলে হবে।
  • আর, যদি একটির বদলে ৬০ টি রোযা একাধারে রাখা এমন রোযার কাযা হয়। তাহলে মধ্যখানের রোযা ভঙ্গ হওয়ার কারনে, আবার প্রথম থেকে রাখতে হবে।

আশাকরি বুঝেছেন।
টি উত্তর

সম্পর্কিত প্রশ্নগুচ্ছ

3 টি উত্তর

294,469 টি প্রশ্ন

381,125 টি উত্তর

115,224 টি মন্তব্য

161,766 জন নিবন্ধিত সদস্য

বিস্ময় বাংলা ভাষায় সমস্যা সমাধানের একটি নির্ভরযোগ্য মাধ্যম। এখানে আপনি আপনার প্রশ্ন করার পাশাপাশি অন্যদের প্রশ্নে উত্তর প্রদান করে অবদান রাখতে পারেন অনলাইনে বিভিন্ন সমস্যার সমাধানের জন্য সবথেকে বড় এবং উন্মুক্ত তথ্যভাণ্ডার গড়ে তোলার কাজে।
...