বিস্ময় অ্যানসারস এ আপনাকে সুস্বাগতম। এখানে আপনি প্রশ্ন করতে পারবেন এবং বিস্ময় পরিবারের অন্যান্য সদস্যদের নিকট থেকে উত্তর পেতে পারবেন। বিস্তারিত জানতে এখানে ক্লিক করুন...
115 জন দেখেছেন
"পবিত্রতা" বিভাগে করেছেন (44 পয়েন্ট)

1 উত্তর

0 টি পছন্দ
করেছেন (4,853 পয়েন্ট)
সম্পাদিত করেছেন

আমাদের জানা মতে বাংলাদেশে হালাল পণ্যের সুনির্দিষ্ট কোনো তালিকা নেই। বাংলাদেশে হালাল পণ্যের সংখ্যা তো কোটির ঘর ছাড়িয়ে যাবে। যেহেতু এটি একটি মুসলিম প্রধান দেশ। এখানে হালাল পণ্যের সংখ্যাই বেশি। আর বিদেশী পণ্যের ব্যাপারে সর্বোচ্চ সন্দেহ হতে পারে। সুনিশ্চিতভাবে সেগুলোকেও হারাম পণ্য বলা যাবে না। যতক্ষণ পর্যন্ত জানা না যাবে, এগুলো হারাম উপাদান দ্বারা প্রস্তুতকৃত ততক্ষণ পর্যন্ত সেগুলোকে হারাম বলা যাবে না। সারকথা, হালাল পণ্যের নির্দিষ্ট কোনো সীমা পরিসীমা নেই। তাই সুনির্দিষ্টভাবে এর তালিকা প্রদান করা অসম্ভব। তবে হালাল ও হারাম পণ্য নির্ণয়ের কিছু মূলনীতি বলে দেয়া যেতে পারে। যথা :

১। মাংস জাতীয় পণ্য হলে তা মুসলিমদের কাছে হালাল কি না তা জেনে নিতে হবে। এবং জবাইয়ের সময় বিসমিল্লাহ বলা হয়েছে কিনা  তা যাচাই করে নিতে হবে। তবে মুসলিমগণ জবাই করলে সন্দেহ করার প্রয়োজন নেই। সাধারণত মুসলিমগণ বিসমিল্লাহ বলেই জবাই করে থাকে। তবে নিশ্চিতভাবে যদি জানা যায়, বিসমিল্লাহ বলা হয় নি তাহলে তা আহার করা বৈধ হবে না। 

২। অন্যান্য পণ্যের ক্ষেত্রে দেখতে হবে তাতে হারাম উপাদান মিশ্রিত করা হয়েছে কি না। যদি হারাম উপাদান মিশ্রিত করা হয় এবং সে হারাম উপাদানের মৌলিকত্ব অবশিষ্ট থাকে তাহলে তাও ব্যবহার করা বৈধ নয়। 

৩। পণ্যটি কোনো বিধর্মীদের ধর্মীয় রীতি নীত ও সংস্কৃতি প্রকাশক কি না। এমনটি হলেও তা ব্যবহার করা বৈধ নয়।

উপরোক্ত মূলনীতির আলোকে হালাল হারাম নির্ণয় করে নেয়া যেতে পারে।




সম্পর্কিত প্রশ্নগুচ্ছ

323,046 টি প্রশ্ন

413,608 টি উত্তর

128,165 টি মন্তব্য

177,909 জন নিবন্ধিত সদস্য

বিস্ময় বাংলা ভাষায় সমস্যা সমাধানের একটি নির্ভরযোগ্য মাধ্যম। এখানে আপনি আপনার প্রশ্ন করার পাশাপাশি অন্যদের প্রশ্নে উত্তর প্রদান করে অবদান রাখতে পারেন অনলাইনে বিভিন্ন সমস্যার সমাধানের জন্য সবথেকে বড় এবং উন্মুক্ত তথ্যভাণ্ডার গড়ে তোলার কাজে।
...