বিস্ময় অ্যানসারস এ আপনাকে সুস্বাগতম। এখানে আপনি প্রশ্ন করতে পারবেন এবং বিস্ময় পরিবারের অন্যান্য সদস্যদের নিকট থেকে উত্তর পেতে পারবেন। বিস্তারিত জানতে এখানে ক্লিক করুন...
3,341 জন দেখেছেন
"আইন" বিভাগে করেছেন (38 পয়েন্ট)

2 উত্তর

0 টি পছন্দ
করেছেন (4,853 পয়েন্ট)
 
সর্বোত্তম উত্তর

যদি বাবার পূর্বে ছেলে মারা যায় এবং বাবা তার জীবদ্দশায় তার ওয়ারিশদের মাঝে সম্পত্তি বণ্টন করে দিতে চায় তাহলে ইসলামী শরীয়াতের বিধান হলো, ছেলে মেয়েদের মাঝে সমান হারে বণ্টন করে দিবে। এবং অন্যান্য ওয়ারিশদের মাঝে ফারায়েজের সাহাম তথা অংশ অনুপাতে বণ্টন করে দিবে। তবে মরণোত্তর ওয়ারিশদের মধ্যকার সম্ভাব্য বিবাদ এড়ানোর লক্ষে মিরাস অনুসারে বণ্টন করারও অবকাশ রয়েছে। তবে জীবদ্দশায় সম্পদ বণ্টনের ক্ষেত্রে যদি অসচ্ছলতা, সেবা শুশ্রুষা বা ধর্মীয় বিষয়ে অগ্রগামিতা কিংবা শরীয়তসম্মত অন্য কোনো কারণে ছেলে মেয়েদের কাউকে প্রাধান্য দেয়া হয় তাহলে তারও অবকাশ রয়েছে। আর ইসলামী শরীয়ার আইন মতে ছেলের সন্তান তথা দাদার দৌহিত্রগণ দাদার ওয়ারিশ হয় না। তাই দাদার সম্পদে দৌহিত্রদের নির্দিষ্ট কোনো অংশ নেই। এবং এক্ষেত্রে মৃত ছেলে বিবেচ্যও হবে না। কারণ মৃত ব্যক্তি কারো ওয়ারিশ হতে পারে না। যদি মৃত ব্যক্ত ওয়ারিশ গণ্য হতো তাহলে সে সূত্রে তার ছেলেরা দাদার সম্পদে হারে হারে নির্দিষ্ট একটা অংশ পেত। কিন্তু ইসলামী আইনে মৃত কাউকেই ওয়ারিশ হিসেবে গণ্য করা হয় নি। এর অর্থ এই নয়, তাদের কোনো অংশ প্রদান করা যাবে না। বরং এক্ষেত্রে ইসলামী শরীয়ত তাদের সম্পদ প্রদানে উৎসাহিত করেছে। এটা একান্তই মানবিক ব্যাপার। এক্ষেত্রে দাদার কর্তব্য হলো, তার পিতৃহীন দৌহিত্রদের বেশি পরিমাণে সম্পদ দিয়ে তাদের পাশে দাঁড়ানো। আর যদি দাদার ইন্তেকালের পর তার সম্পত্তি বণ্টণ করা হয় তাহলে দৌহিত্রগণ তাদের পিতা বেঁচে না থাকায় দাদার সম্পদে নির্দিষ্ট কোনো অংশ পাবে না। বরাং দাদার জীবিত ওয়ারিশ যারা আছে তারাই পাবে। এক্ষেত্রে অন্যান্য ওয়ারিশদের অনুমতি ছাড়া দৌহিত্রদের সম্পদ প্রদান করা হলে গুনাহ হবে। তবে ওয়ারিশদের জন্য উচিত হলো, সর্বসম্মতিক্রমে দৌহিত্রদেরও কিছু অংশ দেয়া। এটা হলো ইসলামী শরীয়াতের বিধান। আমাদের দেশীয় আইনে যদিও দাদার সম্পদে দৌহিত্রদের ওয়ারিশ গণ্য করা হয়েছে। এখানে আমাদের দেশীয় আইন এবং ইসলামী আইনের মাঝে বৈপরিত্য সৃষ্টি হয়েছে। এখন কে কোন আইন ফ্লো করবে সেটা তার ব্যক্তিগত ব্যাপার। দেশীয় আইন ফ্লো করলে পরকালীন দায়বদ্ধতা ও জবাবদিহিতা থেকে যাবে এই যা পার্থক্য। তথ্যসূত্র : সুনানে বাইহাকী কুবরা, হাদীস ১২৩৫৭, সুনানে আবু দাউদ, হাদীস ৩৫৪৪, তাকমিলাতু ফাতহিল মুলহিম ২/৪৬, খুলাসাতুল ফাতাওয়া ৪/৪০০, ফাতাওয়া কাযীখান ৩/২৭৯, ফাতাওয়া হিন্দিয়া ৪/৩৯১, ফাতাওয়া বাযযাযিয়া ৬/২৩৭, আদদুররুল মুখতার ৫/৬৯৬, ফাতাওয়া হাক্কানিয়া ৬/৫৩০, ফাতাওয়া রহীমিয়া ৯/৩১২, আহসানুল ফাতাওয়া ৯/৩১০

0 টি পছন্দ
করেছেন (18,123 পয়েন্ট)
অবশ্যই পাবে। সন্তানরা তাদের বাবার যা পাওয়ার ছিলো সে অংশের ভাগ পাবে। তাদের দাদা তাদের এ অংশ দিতে বাধ্য।
শাকিল আহমেদ আরিয়ান ইন্টারনেট জগতের সাথে পরিচিত হওয়ার পর থেকে স্রেফ উৎসাহ বশঃত এর গভীর পর্যন্ত জ্ঞান আহরণের চেষ্টা করেছেন, যতই গভীরে গিয়েছেন ততই এর প্রতি আরও আকৃষ্ট হয়েছেন। নিজে জানার আর অন্যকে জানানোর অদম্য ইচ্ছার প্রয়াসে আজ বিস্ময়ের সাথে এতটা জড়িয়ে গেছেন। ভবিষ্যতে একজন কম্পিউটার সাইন্টিস্ট হওয়ার লক্ষ্য নিয়ে এগিয়ে যাচ্ছেন তিনি, আপনাদের সকলের নিকট দোয়াপার্থী। বিস্ময় ডট কমের সাথে আছেন সমন্বয়ক হিসেবে।
করেছেন (38 পয়েন্ট)
এতে ইসলামিক কোন বাধা আছে যে পাবেনা??
করেছেন (4,853 পয়েন্ট)

শাকিল ভাই! উত্তরটা বোধ হয় খুব বেশ সংক্ষিপ্ত হয়ে গেছে। একটু কষ্ট করে তৃতীয় উত্তরটা দেখবেন কি ?

টি উত্তর

সম্পর্কিত প্রশ্নগুচ্ছ

304,608 টি প্রশ্ন

393,330 টি উত্তর

119,677 টি মন্তব্য

168,866 জন নিবন্ধিত সদস্য

বিস্ময় বাংলা ভাষায় সমস্যা সমাধানের একটি নির্ভরযোগ্য মাধ্যম। এখানে আপনি আপনার প্রশ্ন করার পাশাপাশি অন্যদের প্রশ্নে উত্তর প্রদান করে অবদান রাখতে পারেন অনলাইনে বিভিন্ন সমস্যার সমাধানের জন্য সবথেকে বড় এবং উন্মুক্ত তথ্যভাণ্ডার গড়ে তোলার কাজে।
...