বিস্ময় অ্যানসারস এ আপনাকে সুস্বাগতম। এখানে আপনি প্রশ্ন করতে পারবেন এবং বিস্ময় পরিবারের অন্যান্য সদস্যদের নিকট থেকে উত্তর পেতে পারবেন। বিস্তারিত জানতে এখানে ক্লিক করুন...
17 জন দেখেছেন
"তথ্য-প্রযুক্তি" বিভাগে করেছেন (38 পয়েন্ট)

2 উত্তর

0 টি পছন্দ
করেছেন (823 পয়েন্ট)

আপনার উত্তরটি বিস্তারিত দেখুন- এখান

0 টি পছন্দ
করেছেন (1,487 পয়েন্ট)
ইউটিউবের নতুন ৫ টি নিয়ম কানুন এবং আইন (YouTube rules & policy) আগে YouTube এ এতটা কড়া আইন কখনোই ছিলোনা। কিন্তু, দিনে দিনে বেড়েযাওয়া “কপিরাইট সমস্যার” জন্য এবং “লো কোয়ালিটি (low quality) ভিডিও” সম্যসার জন্য এই কড়া (strict) আইন বের করতে YouTube বাদ্ধ হয়েছে। এবং, এই ইউটিউবের নিয়ম বা আইনের জন্যই, আজ YouTube এ ভালো ভালো এবং high quality ভিডিও আপলোড হচ্ছে। এতে, অনেক advertiser (বিজ্ঞাপন চালক) রা ইউটিউবে বিজ্ঞাপন দেখানোর জন্য তাকে টাকা দিচ্ছেন এবং এতে আমরাও ইউটিউবের থেকে টাকা আয় করার সুযোগ পাচ্ছি। তাই, এই নিয়ম বা পলিসি রুলস গুলি আমাদের জন্য, ইউটিউবের জন্য এবং তার advertiser দেড় জন্য সবের জন্য অনেক জরুরি এবং লাভদায়ক। ১. অন্যদের ভিডিও, ছবি, গান (audio) ব্যবহার করবেননা (copyright rules) ইউটিউব কপিরাইট আইন মন দিবেন, সব সময় নিজের বানানো অরিজিনাল ভিডিও ইউটিউবে আপলোড দিবেন। আপনি যদি, অন্য কারোর ভিডিও ইন্টারনেট থেকে নিয়ে নিজের চ্যানেলে আপলোড করেন, তাহলে আপনার চ্যানেলে copyright strike আসতে পারে। Copyright strike লাগাতার (পরে পরে) ৩ টি হলে আপনার সম্পূর্ণ চ্যানেল ইউটিউবের থেকে ডিলিট হয়ে যাবে। এর পর আপনি অন্য চ্যানেল বানাতে পারবেননা। একেই বলা হয় YouTube এর কপিরাইট পলিসি। Copyright পলিসিকে ভালো করে বুঝুন হে, আপনারা চাইলে অন্যদের ভিডিও দেখে তার থেকে আইডিয়া (idea), ধারণা (concept) বা জ্ঞান নিয়ে নিজের একটি আলাদা ভিডিও বানাতে পারেন। এতে, আপনার copyright violation এর কোনো ভয় থাকবেনা। কিন্তু, সোজাসোজি অন্য কারো বানানো ভিডিও, ক্লিপ (clip) বা ভিডিওর কোনো অংশ আপনি ব্যবহার করতে পারবেননা। যদি ব্যবহার করেন, তাহলে এইটা মনে রাখবেন, আপনি যার (copyright owner এর) ভিডিও, ক্লিপ বা কোনো ভিডিওর অংশ ব্যবহার করছেন সে আপনার চ্যানেলের ওপরে copyright claim করতে পারে। ফলে, আপনার কপি করা ভিডিও গুলিতে ইউটিউবের দ্বারা copyright strike আসতে পারে। এবং, আমি যা আগে বলেছি, পর পর ৩ টি copyright strike চ্যানেলে আসলে আপনার চ্যানেল চির কালের জন্য ডিলিট (delete) করে দেয়া হবে। আবার, অনেক সময় হয়তো আপনার আইনগত শাস্তি বা জুরমানা (penalty) ভরতে লাগতে পারে। তাই, যা ভিডিও বানাবেন, তাতে কেবল নিজের কনটেন্ট (content) ব্যবহার করবেন। ইন্টারনেটে থাকা অন্য কারোর ভিডিও, images, গান, ভয়েস (voice clip) বা কিছুই ব্যবহার করবেননা। কেবল, নিজের unique কনটেন্ট দ্বারা ভিডিও বানানোই আপনার আসল অগ্রাধিকার (priority) থাকতে হবে। Image copyright (Royalty ফ্রি ছবি) ভিডিওতে কোনো ধরণের ছবি, যেমন “ thumbnail images” ব্যবহার করলে সেগুলি ইন্টারনেটে থাকা “ Royalty free images website” থেকে ব্যবহার করবেন। Royalty free ছবি জেকেও নিজের ওয়েবসাইটে, ব্লগে বা ভিডিওতে কোনো ভয় ছাড়া ব্যবহার করতে পারে। কারণ সেই ছবির কোনো মালিকানা অধিকার থাকেনা। অন্য ভাবে বললে royalty ফ্রী ছবি মানে copyright free ছবি। তাই, জেকেও সেগুলি ব্যবহার করতে পারেন। কিছু royalty free images ওয়েবসাইটের নাম হলো – Pixabay এবং pexels. এগুলি সাইট থেকে আপনি নিজের ব্লগ বা ইউটিউবের চ্যানেল বা ভিডিওর জন্য ছবি ডাউনলোড করে ব্যবহার করতে পারবেন। আপনি যদি, গুগল থেকে বা অন্য ওয়েবসাইট থেকে ছবি ব্যবহার করেন, তাহলে আপনার ভিডিওতে copyright strike এসেযাবে। কারণ, সেই ছবিগুলোর আসল owner বা মালিক অন্য এবং আপনি তাদের ছবি এভাবে ব্যবহার করতে পারবেননা। Copyright ফ্রী music বা audio আমরা অনেক সময়, নিজের YouTube চ্যানেলের ভিডিও গুলিতে background music বা অডিও দিয়ে ভালো পাই। কিন্তু, আপনি নিজের ভিডিওতে যেকোনো audio বা music ব্যবহার করতে পারবেননা। Royalty ফ্রি images এর মতোই আপনার Royalty free music নিজের ভিডিওতে ব্যবহার করতে হবে। এতে, ভিডিওতে ব্যবহার করা audio গুলিতে কারো মালিকানা অধিকার থাকবেনা এবং তাই কেও আপনার ভিডিওতে copyright claim করার সুযোগ পাবেনা। নিজের ইউটিউবের ভিডিও গুলির জন্য আপনারা Royalty free audio অনেক ওয়েবসাইট থেকে ডাউনলোড করতে পারবেন। কেবল Google এ “Royalty free music” লিখে সার্চ করলেই হলো। এর বাইরেও আপনারা “ YouTube এর audio library ” থেকে music বা audio ডাউনলোড করে নিজের ভিডিওতে ব্যবহার করতে পারবেন। ২. ভিডিও অতিরিক্ত শেয়ার করবেননা দেখা গেছে যে, আপনি যদি ইউটিউবের ভিডিও অনেক বেশি ভাবে শেয়ার করেন, তাহলে ইউটিউব আপনার ভিডিওতে monetization disable করেদিতে পারে। এতে, আপনার টাকা কমানোর রাস্তা বন্ধ হয়ে যেতে পারে। কারণ, ইউটিউব organic search traffic বেশি পছন্দ করে যেগুলি আমরা গুগল সার্চ বা ইউটিউবের ভিডিও সার্চ থেকে পায়। এবং, ফেসবুক, টুইটার বা অন্য কোনো সোশ্যাল মিডিয়া সাইট থেকে আশা ভিউ বা ট্রাফিক ইউটিউব পছন্দ করেনা। তাই, চেষ্টা করবেন যাতে আপনার ভিডিও গুলিতে সবচে বেশি ভিউ গুগল সার্চ বা ইউটিউবের সার্চ থেকে হোক। নিজের ভিডিও, সোশ্যাল মিডিয়া সাইট গুলিতে অল্প স্বল্প শেয়ার অবশই করবেন কিন্তু অতিরিক্ত শেয়ার আপনার চ্যানেলের জন্য অনেক ক্ষতিকারক হতে পারে। ৩. ভিডিও Nudity and sexual content policies আপনার আপলোড করা ভিডিওতে কোনোরকমের NUDITY (অশ্লীলতা) থাকতে পারবেনা। অশ্লীল ভিডিও বা ছবি থাকলে সে ভিডিও ইউটুব কোনোদিন মেনে নিবেন এবং আপনার চ্যানেল BLOCK বা DELETE হয়ে যেতে পারে। ৪. Hacking (হ্যাকিং) এর সাথে জড়িত ভিডিও হ্যাকিং বা এরকম ধরণের কোনো ভিডিও আপনি বানাতে পারবেননা যেখানে হ্যাকিং এর ব্যাপারে বলা হচ্ছে বা শিখানো হচ্ছে। ৫. Low quality ভিডিও বানাবেননা ইউটিউব তার ইউসার দেড় ভালো এবং কামে আশা ভিডিও দেখাতে চায়। এবং তাই, যদি আপনার ভিডিওতে কোনো ধরনের কাজের জিনিস নেই বা সে low quality র তাহলে তাতে বিজ্ঞাপন দেখানো হবেনা। এতে, আপনার আয় করার সুযোগ হাতছাড়া হয়ে যাবে। তাই, সব সময় এমন ভিডিও বানাবেন যেগুলি লোকেরা দেখে ভালো পান , যেগুলিতে কাজের জিনিস থাকে এবং যেগুলির থেকে লোকেরা অনেক কিছু শিখতে পারে। এমন ভিডিও, যেগুলিতে কাজের অনেক কিছু শিক্ষা যায় এবং লোকেরা দেখে ভালো পান, সেগুলিকে High quality ভিডিও বলে। এবং, এমন ভিডিও ইউটিউব অনেক ভালো পায়।

সম্পর্কিত প্রশ্নগুচ্ছ

3 টি উত্তর
06 মে "নেটওয়ার্ক" বিভাগে জিজ্ঞাসা করেছেন bappy420 (15 পয়েন্ট)
0 টি উত্তর
28 সেপ্টেম্বর 2016 "তথ্য-প্রযুক্তি" বিভাগে জিজ্ঞাসা করেছেন স্বপ্নীল (2,717 পয়েন্ট)

353,595 টি প্রশ্ন

447,740 টি উত্তর

140,203 টি মন্তব্য

188,338 জন নিবন্ধিত সদস্য

বিস্ময় বাংলা ভাষায় সমস্যা সমাধানের একটি নির্ভরযোগ্য মাধ্যম। এখানে আপনি আপনার প্রশ্ন করার পাশাপাশি অন্যদের প্রশ্নে উত্তর প্রদান করে অবদান রাখতে পারেন অনলাইনে বিভিন্ন সমস্যার সমাধানের জন্য সবথেকে বড় এবং উন্মুক্ত তথ্যভাণ্ডার গড়ে তোলার কাজে।
...