বিস্ময় অ্যানসারস এ আপনাকে সুস্বাগতম। এখানে আপনি প্রশ্ন করতে পারবেন এবং বিস্ময় পরিবারের অন্যান্য সদস্যদের নিকট থেকে উত্তর পেতে পারবেন। বিস্তারিত জানতে এখানে ক্লিক করুন...
24 জন দেখেছেন
"ফাতাওয়া-আরকানুল-ইসলাম" বিভাগে করেছেন (883 পয়েন্ট)
বিভাগ পূনঃনির্ধারিত করেছেন

1 উত্তর

0 টি পছন্দ
করেছেন (6,439 পয়েন্ট)
ইসলামী শরীয়ায় লেনদেনের ক্ষেত্রে চুক্তির শর্তানুযায়ী শরীয়াহ সম্মত কোনরুপ বিনিময় ব্যতীত মূলধনের উপর অতিরিক্ত যা কিছু গ্রহণ করা হয় তাকে সুদ বলে।

কুরআনে ২০টি আয়াত রয়েছে, যাতে সুদের কথা উল্লেখ রয়েছে, যদিও এর সবগুলো আয়াতে শব্দগতভাবে এর সরাসরি উল্লেখ নেই। তবে এটি সরাসরি বেশ কয়েকবার কুরআনে উল্লেখিত হয়েছে৷ সূরা বাকারার ২৭৫, ২৭৬, ২৭৮, সুরা আল-ইমরানের ১৩০ নং আয়াতে, সূরা নিসার ১৬১ ও সূরা আর-রুমের ৩৯ নং আয়াতে।

“যারা সুদ খায়, তারা তার ন্যায় (কবর থেকে) উঠবে, যাকে শয়তান স্পর্শ করে পাগল বানিয়ে দেয়। এটা এ জন্য যে, তারা বলে, বেচা-কেনা সুদের মতই। অথচ আল্লাহ বেচা-কেনা হালাল করেছেন এবং সুদ হারাম করেছেন।” (সুরা বাক্বারা, আয়াত নং ২৭৫)

“হে মুমিনগণ, তোমরা আল্লাহকে ভয় কর এবং সুদের যা অবশিষ্ট আছে, তা পরিত্যাগ কর, যদি তোমরা মুমিন হও।” (সুরা বাক্বারা, আয়াত নং ২৭৮)

তাছাড়া, সুদের গুনাহ সম্পর্কে রাসূল (সঃ) এমন কিছু উক্তি করেছেন, যেটা অন্যকিছুর ক্ষেত্রে করেন নি। “হযরত আবূ হুরায়রা (রাঃ) হতে বর্ণিত, তিনি বলেন, রাসূলুল্লাহ (সঃ) বলেছেন, সুদের গুনাহর সত্তরতি স্তর রয়েছে। তার মধ্যে সবচেয়ে ক্ষুদ্র স্তর হলো আপন মাকে বিবাহ (যেনা) করা। (সুনানে ইবনে মাজাহ, হাদীস নং ২২৭৪)

সম্পর্কিত প্রশ্নগুচ্ছ

341,165 টি প্রশ্ন

434,326 টি উত্তর

135,721 টি মন্তব্য

184,115 জন নিবন্ধিত সদস্য

বিস্ময় বাংলা ভাষায় সমস্যা সমাধানের একটি নির্ভরযোগ্য মাধ্যম। এখানে আপনি আপনার প্রশ্ন করার পাশাপাশি অন্যদের প্রশ্নে উত্তর প্রদান করে অবদান রাখতে পারেন অনলাইনে বিভিন্ন সমস্যার সমাধানের জন্য সবথেকে বড় এবং উন্মুক্ত তথ্যভাণ্ডার গড়ে তোলার কাজে।
...