বিস্ময় অ্যানসারস এ আপনাকে সুস্বাগতম। এখানে আপনি প্রশ্ন করতে পারবেন এবং বিস্ময় পরিবারের অন্যান্য সদস্যদের নিকট থেকে উত্তর পেতে পারবেন। বিস্তারিত জানতে এখানে ক্লিক করুন...
53 জন দেখেছেন
"নিত্য ঝুট ঝামেলা" বিভাগে করেছেন অজ্ঞাতকুলশীল
মোঃ আরিফ (তপন) জেলা : কিশোরগঞ্জ থানা : পাকুন্দিয়া। গ্রাম: রহিমপুর। পিতা মাজহারুল ইসলাম, মাথা রেহেনা (শিখা) সঠিক এবং কাঙ্খিত উত্তর দিয়ে সাহায্য করলে কৃতজ্ঞ থাকব।

1 উত্তর

0 টি পছন্দ
করেছেন (2,081 পয়েন্ট)
নির্বাচিত করেছেন
 
সর্বোত্তম উত্তর

প্রতিটি মানুষই অপার সম্ভাবনা নিয়ে জন্মায়।  সবার ভেতরেই প্রতিভা থাকে – এবং প্রতিটি প্রতিভাকেই যদি ঠিকভাবে যত্ন করা হয়, তবে সেটাই মানুষকে চূড়ান্ত সফলতার দিকে নিয়ে যেতে পারে।

যদি আপনার কাছে ধনী হওয়া মানে সফল হওয়া হয়, তবে তা হওয়ার সব গুণই আপনার মাঝে আছে।  শুধু সেই গুণগুলোর যত্ন নিতে হবে।  আর যেসব অভ্যাস সেইসব গুণের বিকাশে বাধা দিচ্ছে, সেগুলো বাদ দিতে হবে।

-আপনার মাঝেও গুণ আছে টাকা জমিয়ে সেই টাকা বিনিয়োগ করার।  শুধু বাজে খরচের অভ্যাস বাদ দিতে হবে।  -তেমনি হিসেব না করার অভ্যাস বাদ দিলেই আপনি হিসেবি হয়ে উঠবেন।

-আপনি যদি ব্যর্থতাকে অতিরিক্ত ভয় পান তাহলেও আপনি সফল ও ধনী হতে পারবেন না!

সত্যি বলতে, পৃথিবীতে কেউই ব্যর্থ হতে চায় না।  এই কারণেই বেশিরভাগ মানুষ খুব বড় লক্ষ্য ঠিক করতে ভয় পায়।  সব সময়ে নিরাপদ থাকতে চায়।

আপনার মাঝে যদি ব্যর্থতার ভয় অতিরিক্ত হয়, তবে আপনিও খুব বড় লক্ষ্যের চিন্তা করার সাহস পাবেন না।  বড় লক্ষ্যে ঝুঁকিও বেশি – এটা জেনেই বড় লক্ষ্য অর্জনের কাজ করতে হয়।

আপনি যদি ধনী হতে চান, তবে অনেক নিরাপদ ক্যারিয়ারের হাতছানি আপনাকে অগ্রাহ্য করতে হবে।  হয়তো উচ্চ বেতনের সরকারি চাকরির সুযোগও ছাড়তে হবে।  কিন্তু আপনাকে নিরাপত্তা আর বিরাট ধনসম্পদের সম্ভাবনার একটি বেছে নিতে হবে।  আর সত্যি কথা বলতে, আপনি যদি হাল না ছেড়ে চেষ্টা করে যান – তবে এক সময়ে না এক সময়ে আপনি অবশ্যই সফল হবেন।

আপনার হয়তো মনে হতে পারে, ব্যর্থ হলে যারা নিরাপদ জীবন বেছে নিতে বলেছিল তাদের সামনে মুখ দেখাতে পারবেন না।  কিন্তু আপনি যতক্ষণ  না হার মানছেন – ততক্ষণ আপনার সম্ভাবনা আছে। কাজেই ধনী হতে চাইলে ভয়কে দূরে ঠেলেই কাজ করতে হবে।

আর একটা বিষয়-আপনি নিজের দোষ দেখেন না! আপনার জীবনে খারাপ কিছু ঘটলেই যদি আপনি নিজের ভুল কোথায় হয়েছে – তা খোঁজার বদলে অন্যের ওপর দোষ চাপানোর পথ খোঁজেন – তাহলে নিজের চেষ্টায় ধনী হওয়ার কথা ভুলে যান।

এই স্বভাব যাদের মাঝে আছে, তারা আসলে দায়িত্ব নিতে পারে না।  আপনার যদি একটা ব্যবসা থাকে, এবং ব্যবসায় লস হলে আপনি নিজের ভুল না খুঁজে অন্যের দোষ খুঁজতে থাকেন – তাহলে সেই অবস্থা থেকে জীবনেও বের হতে পারবেন না।

কোনও সমস্যার সমাধান যদি খুঁজে না পান – তবে নিজের দিকে তাকান।  হয়তো সমস্যাটা আপনার নিজের।  মার্কেটে আপনার নতুন পন্য বা সার্ভিস চালাতে পারছেন না – এটা কখনওই মার্কেটের দোষ নয়।  আপনি আপনার পন্য বা সেবা ঠিকমত প্রচার করতে পারছেন না, অথবা আপনার প্রোডাক্টে কোনও ত্রুটি আছে।

মানুষ নিজের সামনে দাঁড়াতে ভয় পায়।  আপনার ব্যবসায় লাভ হচ্ছে না, কারণ আপনি এখনও ভালোকরে ব্যবসা বোঝেননি। আপনার পন্য মানুষ কিনছে না, কারণ আপনার পন্যে সমস্যা আছে।  সাধারণ মানুষ এসব নিয়ে চিন্তা করতে চায় না।  কিন্তু আপনি যদি সাধারণ মানুষের মত আচরণ করেন, তবে কখনওই অসাধারণ হতে পারবেন না। 

-আপনি যদি মনে করেন পরিশ্রম নয়,ভাগ্যই ধনীদের ধনী করে!তবে,আপনার মাঝে যদি এই মানসিকতা থাকে, তবে আপনি জীবনে আর যাই হোন ধনী হতে পারবেন না।  এটা আসলে পরিশ্রম না করার একটা অজুহাত।

অনেকে বলেন, ধনী হতে হলে ধনী হয়ে জন্মাতে হয়, অথবা কারও সাহায্য পেতে হয়।  কিন্তু সত্যি কথা হল, আপনি যতক্ষণ না নিজে কিছু করে দেখাতে পারছেন – ততক্ষণ আপনাকে কেউ সাহায্য করবে না। 

ভারতীয় হিসেবে সবচেয়ে কম বয়সে বিলিওনেয়ারের খাতায় নাম লেখানো বিজয় শেখর শর্মা এক সময়ে না খেয়ে দিন কাটাতেন।  বাড়িওয়ালার কাছ থেকে পালিয়ে বেড়াতেন।  শুধু চা আর পানি খেয়ে রাতের পর রাত পার করেছেন।  কিন্তু এত কষ্ট করে যখন তিনি দেখানোর মত কিছু একটা দাঁড় করাতে পেরেছেন – তখনই তাঁর সাহায্যে বিনিয়োগকারীরা এগিয়ে এসেছেন।  আজ তিনি প্রায় ২ বিলিয়ন মার্কিন ডলারের মালিক।  আলিবাবা প্রতিষ্ঠাতা জ্যাক মার জীবনী থেকে জানা যায়, তিনি একদমই হতদরিদ্র এবং ব্যর্থ অবস্থা থেকে আজকের বিশ্বের সেরা একজন ধনী হয়েছেন।  মিডিয়া মোগল বিলিওনেয়ার অপরাহ উইনফ্রে ছিলেন কৃষি খামারে আশ্রিত ও অত্যাচারিত।

এরা যদি ভাগ্যের ওপর নির্ভর করে থেকে পরিশ্রম না করতেন – তবে কেউই এতটা ধনী আর সফল হতে পারতেন না।  এমনকি বেশিরভাগ ধর্মেও বলা আছে যে, নিজে চেষ্টা না করলে সৃষ্টিকর্তাও সাহায্য করেন না।

কাজেই, নিজের চেষ্টায় ধনী হতে চাইলে আপনাকে অবশ্যই পরিশ্রম করতে হবে।  এই লেখাটি পড়ছেন, মানে আপনি পৃথিবীর সেই সৌভাগ্যবানদের একজন, যার হাতে ইন্টারনেট ও এমন একটি ডিভাইস আছে – যা দিয়ে আপনি যে কোনও কিছু শিখতে পারবেন।  শুধুমাত্র একটি ইন্টারনেট কানেকশন থাকলে আজ নিজের চেষ্টায় অনেক কিছু করা যায়।

আপনার বর্তমান আর্থিক অবস্থা যা-ই হোক না কেন, সঠিক ভাবে পরিকল্পনা ও পরিশ্রম করলে  কিছু বছরের মধ্যে আপনার অবস্থা ঘুরে যাবে।সঠিক পথে পরিশ্রম করলে আপনি যতটা আশা করছেন, তারচেয়েও তাড়াতাড়ি আপনি ধনী হতে পারবেন।  কাজেই সৌভাগ্যের আশায় বসে না থেকে নিজের ভাগ্য নিজে গড়তে শুরু করুন

আরো একটা বিষয়,হিসেবী হতে হবে!আপনি যদি সত্যিকার ধনী হতে চান, তবে আপনাকে অবশ্যই হিসেবী হতে হবে।  এখানে হিসেবী হওয়া মানে শুধু হিসেব করে টাকা খরচ করার কথা বলছি না।  আপনাকে প্রতিটি টাকা কোথায় যাচ্ছে, এবং কোন খাতে কত টাকা খরচ হচ্ছে, কত টাকা আয় হচ্ছে, কোন খাতে ব্যয় করাটা লাভজনক হবে – এসব বিষয় খুব ভালো করে হিসেব করতে হবে। 

দ্বিতীয়ত -কি করলে সবাই আপনাকে ভালোবাসবে?

এটা সংক্ষেপে বলতে গেলে বলতে হয়!সৎ হোন,সৎ কর্ম করুন,সৎভাবে বাঁচুন৷ ইনশাআল্লাহ আজ না হলেও,একদিন সবাই আপনাকেই ভালোবাসবে৷  

সম্পর্কিত প্রশ্নগুচ্ছ

1 উত্তর
13 ডিসেম্বর 2018 "প্রেম-ভালোবাসা" বিভাগে জিজ্ঞাসা করেছেন Taj (13 পয়েন্ট)
1 উত্তর
11 নভেম্বর 2016 "প্রেম-ভালোবাসা" বিভাগে জিজ্ঞাসা করেছেন আহসান মাহির (92 পয়েন্ট)

321,411 টি প্রশ্ন

411,628 টি উত্তর

127,464 টি মন্তব্য

177,161 জন নিবন্ধিত সদস্য

বিস্ময় বাংলা ভাষায় সমস্যা সমাধানের একটি নির্ভরযোগ্য মাধ্যম। এখানে আপনি আপনার প্রশ্ন করার পাশাপাশি অন্যদের প্রশ্নে উত্তর প্রদান করে অবদান রাখতে পারেন অনলাইনে বিভিন্ন সমস্যার সমাধানের জন্য সবথেকে বড় এবং উন্মুক্ত তথ্যভাণ্ডার গড়ে তোলার কাজে।
...