বিস্ময় অ্যানসারস এ আপনাকে সুস্বাগতম। এখানে আপনি প্রশ্ন করতে পারবেন এবং বিস্ময় পরিবারের অন্যান্য সদস্যদের নিকট থেকে উত্তর পেতে পারবেন। বিস্তারিত জানতে এখানে ক্লিক করুন...
28 জন দেখেছেন
"ইসলাম" বিভাগে করেছেন অজ্ঞাতকুলশীল
অনেক দিন ধরে ইসলামিক বিভাগে একটা প্রশ্নের উত্তর জানতে চাইব চাইব করে চাওয়া হয় না তাই আজ করেই ফেললাম। আমি আজ ১২+ বছর যাবত এক ছেলেকে চিনি।২০১৭ সালে তার সাথে আমার মোবাইল ফোনে বিয়ের কাবিন হয়।দুই পরিবারের মধ্যে প্রথম অবস্থায় সম্পর্ক খুব ভাল ছিল।ছেলের বাড়ি সিলেট আমার বাড়ি রংপুর।ছেলেকে আমি এখনো সরাসরি দেখি নাই। এরই মধ্যে ছেলেটির সাথে আমার মোবাইল ফোনে কিছু অন্তরাঙ্গ ছবি ভিডিও দেওয়া নেওয়া হয়।সে স্বামীর নাম করে যখন তখন আমার কাছে খোলা মেলা ছবি ভিডিও চাইত। আমিও ইচ্ছায় সেচ্ছায় কখনও কখনও দিতাম। ছেলেটি বিদেশে প্রায় মদ জুয়া আর পতিতাদের নিয়ে পরে থাকে।আমি মদ জুয়ার নেশাটাকে মেনে নিতে পারলেও পতিতার কাছে যাওয়াটা কোনভাবে ই মেনে নিতে পারিনি। সে নিজের রুমে পতিতা এনে যৌনতা করে ছবি তুলে আমাকে ইমুতে পাঠিয়েছে। আমি তারপর থেকে আজ প্রায় ৫ বছর হল সে দৃশ্য মন থেকে সরাতে পারছি না। এ নিয়ে প্রায় সময় ওর সাথে আমার মোবাইল ফোনেই ঝগড়াঝাঁটি হয়।আর এর পরেই সে তার কাছে থাকা আমার সকল ছবি ভিডিও ফেইসবুকে ইমুতে আমার আত্মীয় স্বজনদের কাছে ছেড়ে দেয়।লজ্বায় ঘৃণায় আজ আমি সর্বশান্ত। নিস্তব্ধ।কিন্তু তার ও উলঙ্গ ছবি ভিডিও আমার কাছে আছে অথচ আমি আজও কোথাও ছাড়িনি।আমি আমার সৃষ্টিকর্তাকে ভয় করি।তার সাথে আমার বহুবার মৌখিকভাবে তালাক হয়ে গেছে। সে পুনরায় আমার কাছে ফিরতে চাইত আমি তার ভুল ক্ষমা করে দিয়ে বহুবার তার কাছে ফিরেছি বেশ কিছু দিন ভাল কাটে আবার ঝগড়া শুরু হয়ে যায় আর যতবার ই ঝগড়া হয় সে ততবার ই আমার ছবি ভিডিও গুলো ফেইসবুকে ছেড়ে দেয়।ওর পরিবারে বহুবার এসব জানাই কিন্তু কেউ ই ওর হয়ে ভাল কিছু বলে না সবাই ওরে ভুলে যেতে বলে কিন্তু আমি আর কোনভাবে তাকে চাই না। সে আমার ছবি ভিডিও গুলো এখনো ফেইসবুকে ছেড়ে রেখেছে।আমার প্রশ্ন হল (যদি কোন স্বামী তার স্ত্রীর গোপনীয় অঙ্গ প্রতঙ্গ বিভিন্ন বাজে লোকদের দেখিয়ে আত্মতৃপ্তি পায় যা ইসলামে হারাম তার দুনিয়া ও আখিরাতে কি রূপ শাস্তি রয়েছে?)

1 উত্তর

+1 টি পছন্দ
করেছেন (2,301 পয়েন্ট)

প্রথমতো আপনাকে যে বিষয়টা দেখতে হয় তা হলো-আপনারা স্বামী -স্ত্রী  কি না?

উল্লেখ্য মোবাইলের মাধ্যমে যে বিবাহ হয়, তা শরীয়ত মোতাবেক বিশুদ্ধ হয় না। (ফাতওয়া হিন্দিয়্যাহ- ১/৩২২, হিদায়া- ২/২৮৬, ২৯১, তাবঈনুল হাক্বায়েক্ব- ৩/৪৫৩)।তবে হ্যা!সহিহ বা বৈধও হওয়ার উপায় রয়েছে৷এসম্পর্কে জানতে পুরো লিখাটা পড়েন৷ 

বিয়ে সহীহ হওয়ার জন্য শর্ত হল, একই মজলিসে বর- কনে  স্বশরীরে উপস্থিত থেকে সাক্ষীগণের সম্মুখে বিবাহের ইজাব-কবুল তথা (প্রস্তাব- কবুল) গ্রহণ করবে। আর তারা উপস্থিত হতে না পারলে, তাদের  পক্ষ থেকে বিবাহকার্য সম্পাদনের জন্য কোন প্রতিনিধি নিয়োগ করবে। তিনি স্বাক্ষীগণের উপস্থিতিতে অপরের বিবাহের প্রস্তাব দিবেন বা কবুল করবেন। আর টেলিফোনের মাধ্যমে ইজাব-কবুল করা গেলেও বর-কনে বা তদের প্রতিনিধির উপস্থিতি পাওয়া যায় না। তাই শরীয়তের দৃষ্টিতে মোবাইল/ফোনে বিয়ে সহীহ হয় না।

তবে মোবাইল/ফোনের মাধ্যমে বিবাহ শুদ্ধ হওয়ার একটা পদ্ধতি আছে, তা হলো- উভয় পক্ষের কোন এক পক্ষ থেকে ফোনের মাধ্যমে এক ব্যক্তিকে নিজের উকিল বানাবে। তিনি উকিল হয়ে দু’জন  স্বাক্ষীর সামনে প্রস্তাব করবেন। অপর পক্ষ তখন কবুল করবে। তাতে বিয়ে হয়ে যাবে। তেমনিভাবে কনে টেলিফোনে বরকে নিজের বিয়ের উকিল বানাতে পারে। তখন বর যদি দু’জন স্বাক্ষীর সামনে বলে যে, অমুক মহিলা তার বিয়ের জন্য আমাকে উকিল বানিয়েছে। আমি তাকে এত টাকার বিনিময়ে বিয়ে করলাম। এতেও বিবাহ সহীহ হয়ে যাবে। (দেখুনঃ খুলাসাতুল ফাতাওয়া, জাদীদ ফিকহী মাসায়িল)

এবার আপনি যদি বলেন উল্লেখিত শর্ত আমাদের বিবাহে পাওয়া গেছে,তাহলে আপনারা স্বামী স্ত্রী -আর যদি পাওয়া না যায়,তাহলে আপনারা কঠিন গোনাহ, যিনার গোনাহে লিপ্ত!এবং এর কঠিন শাস্তি৷

আপনার প্রশ্নমতে-কোন স্বামী যদি তার স্ত্রীর গোপনীয়তা প্রকাশ করে,তার শাস্তি!সাংসারিক সমস্যা নিয়ে অন্যদের সাথে আলোচনা না করাই শ্রেয়।এবং উচিত স্বামী-স্ত্রীর মাঝে উপভোগ্য বিষয়গুলো গোপন করা। রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম বলেনঃ  কিয়ামতের দিন আল্লাহর দরবারে সর্ব-নিকৃষ্ট ব্যক্তি সে, যে নিজের স্ত্রীর সাথে মিলিত হয় এবং যার সাথে তার স্ত্রী মিলিত হয়, অতঃপর সে এর গোপনীয়তা প্রকাশ করে বেড়ায়। [মুসলিম : ২৫৯৭]

স্বামী স্ত্রীর মধ্যে অত্যন্ত নিবিড় সম্পর্ক বিদ্যমান। স্বামী স্ত্রী একজন আরেকজনের ইজ্জত রক্ষক ও দুর্গ। তাই স্ত্রীর গোপন বিষয় যেমন স্বামীর জন্য অন্য কারো কাছে প্রকাশ করা কোনো মতেই বৈধ নয়, ঠিক তেমনি স্ত্রীরও স্বামীর কোনো গোপন কথা বা গোপন বিষয় অন্যের কাছে প্রকাশ করবে না। একে অপরের গোপনীয়তা রক্ষা করা পবিত্র আমানত। এ আমানতের খিয়ানত করা সাংঘাতিক গোনাহর ব্যাপার। পারিবারিক জীবনে স্বামী স্ত্রীর মধ্যে কোনো ব্যাপারে মতের মিল নাও হতে পারে, কখনও রাগ অভিমানও হতে পারে। কিন্তু কোনো অবস্থায়ই স্বামী -স্ত্রী তাদের গোপনীয়তা অন্যের কাছে প্রকাশ  করতে পারবে না!!

আল্লাহ আপনাকে সঠিক সিদ্ধান্ত নেওয়ার তাওফিক দিন৷ 

সম্পর্কিত প্রশ্নগুচ্ছ

3 টি উত্তর

323,104 টি প্রশ্ন

413,691 টি উত্তর

128,186 টি মন্তব্য

177,937 জন নিবন্ধিত সদস্য

বিস্ময় বাংলা ভাষায় সমস্যা সমাধানের একটি নির্ভরযোগ্য মাধ্যম। এখানে আপনি আপনার প্রশ্ন করার পাশাপাশি অন্যদের প্রশ্নে উত্তর প্রদান করে অবদান রাখতে পারেন অনলাইনে বিভিন্ন সমস্যার সমাধানের জন্য সবথেকে বড় এবং উন্মুক্ত তথ্যভাণ্ডার গড়ে তোলার কাজে।
...