বিস্ময় অ্যানসারস এ আপনাকে সুস্বাগতম। এখানে আপনি প্রশ্ন করতে পারবেন এবং বিস্ময় পরিবারের অন্যান্য সদস্যদের নিকট থেকে উত্তর পেতে পারবেন। বিস্তারিত জানতে এখানে ক্লিক করুন...
100 জন দেখেছেন
"ইসলাম" বিভাগে করেছেন (204 পয়েন্ট)
সম্পাদিত করেছেন
সেখানে বলা হলো আল্লাহ হলো কাল্পনিক(নাউজুবিল্লাহ) এবং সে এই যুক্তি দিল যে ধরুন আমার ক্যান্সার বা এইডস এখন আমি যদি আল্লাহর প্রতি পূর্ণ ইমান এনে তাকে বলি আমার ক্যান্সার ভালো করে দিন তিনি করবেন না,কিন্তু কেন?(যেহেতু আল্লাহ বলেন তিনি বান্দার মনোস্কামনা পূরণ করেন)এখন প্রশ্ন আল্লাহ যদি থেকে থাকেন তিনি নিশ্চয় সবই পারবেন।তিনি এতো বড় মাহাবিশ্ব তৈরী করেছেন তাহলে ক্যান্সার সারানো তার পক্ষে অসম্ভব না,কিন্তু তবুও তিনি এরকম কখনো করেন নি,তার মানে আল্লাহ নেই(নাউজুবিল্লাহ)। এমতাবস্থায় ইসলামের সপক্ষে যুক্তি চাই। ওয়েবসাইট - godisimaginary proof এটা লিখে গুগলে সার্চ দিলে পাবেন
করেছেন (3,722 পয়েন্ট)
কোন প্রশ্নটি? বিস্তারিত বলুন।
করেছেন (204 পয়েন্ট)
বিস্তারিত দেয়া হলো।
করেছেন (204 পয়েন্ট)
ধুর মিয়া এখানে বলা হলো আল্লাহ ভালো করে দেয় না কেন?আর এইডস এর বেলায় কী বলবেন?আর হ্যা কথাটা আমি বলছি না,আমাকে চেচাবেন না।
করেছেন (204 পয়েন্ট)
বুঝার চেস্টা করেন ভাই ধরেন এইডসের কোনো ঔষুধ বা চিকিৎসা নেই আর আমার এইডস হলো এখন আমি যদি আল্লাহকে বলি আল্লাহ এইডস ভালো করে দিন তিনি করবেন না কেন?এটা বলা হয়োছে।

2 উত্তর

+1 টি পছন্দ
করেছেন (4,908 পয়েন্ট)
নির্বাচিত করেছেন
 
সর্বোত্তম উত্তর
  • বান্দার ছোট, বড়, কঠিন সব রোগই মহান আল্লাহ তায়ালা কোনো ঔষধ ছাড়াই সুস্থ করে দিতে পারেন। তবে শর্ত হলো আল্লাহর কাছে এমনভাবে চাইতে হবে, এমন দিলে চাইতে হবে, এমন অবস্থায় চাইতে হবে, যাতে আল্লাহ তাকে সুস্থ করে দেন। যেমনঃ খাস নামাজী ও সৎকর্মশীল হয়ে পবিত্র অবস্থায় কান্নাজড়িত কন্ঠে পরিষ্কার মনে আল্লাহর কাছে চাইতে হবে, দিলকে আল্লাহর জিকির দ্বারা জিন্দা রাখতে হবে, তবেই আল্লাহ বান্দার সবচেয়ে বড় রোগটিও কোনো ঔষধ ছাড়াই ভালো করে দিতে পারেন। এমনভাবে চাইলে আল্লাহ নিঃসন্তান ব‍্যক্তিদেরকেও কোনো চিকিৎসা ছাড়াই সন্তান দান করতে পারেন। আল্লাহ তায়ালা তো হযরত মরিয়ম (আঃ)-কে কোনো স্বামী ছাড়াই সন্তান দান করেছেন, কারণ হযরত মরিয়ম (আঃ) ছিলো আল্লাহর প্রিয় বান্দী, সতী ও সৎকর্মশীল মহিলা। এখন একজন বেনামাজী, পাপী ব‍্যক্তি যদি অপবিত্র অবস্থায় অপরিষ্কার দিলে তাকওয়াহীন হয়ে আল্লাহকে বলে, কোনো ঔষধ ছাড়াই আমার ক‍্যান্সার ভালো করে দেন, আমাকে সন্তান দেন, তাহলে তার কোনো প্রার্থনাই আল্লাহ কখনো কবুল করবেন না। আল্লাহ চাইলে কোনো ব‍্যাকটেরিয়া, ভাইরাস ছাড়াই বান্দাকে অসুস্থ করতে পারেন, আবার আল্লাহ চাইলে কোনো ঔষধ, পথ‍্য ছাড়াই বান্দাকে সুস্থ করতে পারেন। আল্লাহ চাইলে সবই পারেন। মনে রাখবেন, আল্লাহ নেক বান্দাদের দোয়া কবুল করেন। কেউ যদি তার খাস দিল ও খাস ইবাদত দিয়ে আল্লাহকে খুশি করতে পারে, তবে আল্লাহ কোনো ঔষধ ছাড়াই তার সবচেয়ে বড় কঠিন রোগটিও ভালো করে দিতে পারেন, কোনো চিকিৎসা বা মেডিসিন ছাড়াই তাকে সন্তান দান করতে পারেন। তবে কোনো রোগ যদি বান্দার মৃত্যুর উসীলা হয়ে থাকে, তাহলে আল্লাহ ঐ রোগের মাধ্যমে বান্দাকে মৃত‍্যুদান করবেন। আর বান্দা যদি খাস দিলে ও খাস ইবাদাতের দ্বারা ঐ রোগ থেকে মুক্তি চায়, তাহলে আল্লাহ তার প্রতিদান পরকালে হলেও বান্দাকে দান করবেন। মনে রাখবেন, অপরিষ্কার দিলে নামাজ কবুল হয় না, রোজা কবুল হয় না, হজ্জ্ব কবুল হয় না, কুরবানী কবুল হয় না, ইবাদত কবুল হয় না, দোয়া কবুল হয় না। যার দিলই অপরিষ্কার, যার বিশ্বাসই আল্লাহ নেই, সে মৌখিক ঈমান দিয়ে কিভাবে আল্লাহর রহমতপ্রাপ্ত হবে? অন্তরে, মুখে ও কাজে তিনটি ক্ষেত্রেই আল্লাহর প্রতি অগাধ বিশ্বাস ও ভালোবাসার নামই ঈমান। তিনটির একটিও যদি বাদ পরে, সেটি আর ঈমান থাকে না। ধন্যবাদ।
করেছেন (204 পয়েন্ট)
মুসলমান হয়ে আপনার মানতে কস্ট হতে পারে,তবে এটা সত্যি আল্লাহ ছোটোখাটো জিনিস হয়তো দেয় তবে সব দেয় না,সাপোজ বাংলাদেশে ২০ কোটি মানুষ এর মধ্যে ২০ জনও খাটি মুসলিম নেই? হ্যা আছে।তাহলে তারা দেশের প্রেসিড্ন্ট নয় কেন? তারা দেশের শীর্ষ ধনী নয় কেন?আচ্ছা সারা পৃথীবিতে এক জনও মুমিন নেই?অবশ্যই আছে,তাহলে বিল গেটস জেফ বেজোস এরা কেনো শীর্ষ ধনী?আসলে সব পাওয়া যায় না একইভাবে এমনটা কখনো হয় নি আল্লাহ অলৌকিক ভাবে এইডস ভালো করেছেন(কেন করেন নি তিনিই ভালো জানেন)।হয়তো নবীদের সময় করতেন এখন করেন না।আরেকটা কথা যতই যুক্তি দেখান এটাই বাস্তব হয়তো আমরা সেকেন্ডে সেকেন্ডে ভুল করি তাই দোয়া কবুল হয় না।
0 টি পছন্দ
করেছেন (3,722 পয়েন্ট)

আপনার লেখায় দুটো পয়েন্ট। দুটো পয়েন্টের আলাদা আলাদা উত্তর দেওয়ার চেষ্টা করব(যদিও আমি ধর্মবিশারদ নই)। হে আল্লাহ, আমাকে শক্তি দান করুন।

  • আপনি বলেছেন ক্যান্সার সারানো অসম্ভব। অথচ কথাটি ডাহা মিথ্যা। বর্তমানে ক্যান্সারের সুন্দর চিকিৎসা বের হয়েছে।আমার নানার ভাই কিছুদিন আগেই তো ক্যান্সারের চিকিৎসা করে এলেন। এখন তিনি আল্লাহর রহমতে সুস্থ আছেন। এনার প্রথম কথাটিই ভুল তথা "বিসমিল্লায় গলদ"। আশা করি বুঝতে পেরেছেন। 
  • আপনার দ্বিতীয় পয়েন্ট এইডস ও আল্লাহর ক্ষমা বিষয়ক। এটি একটু বিস্তৃত ব্যাখার দাবি রাখে। আপনি যদি এইডস সম্পর্কে পড়াশোনা করে থাকেন, তাহলে জানবেন যে, শুধুমাত্র একবারের যিনা/অবৈধ সম্পর্কের জন্য এইডস হয় না। এইডস তখনই হয় যখন কোন ব্যক্তি একাধিক নারীর সাথে বারবার অবৈধ সম্পর্কে লিপ্ত হয়। আর যিনা ইসলামে হারাম। 
  • তাহলে আপনাকে একটা প্রশ্ন করিঃ- ধরুন, আপনি একটা দোকানের মালিক। আপনার দোকানের কর্মচারী খারাপ। একদিন সে আপনার দোকান থেকে ৫০০ টাকা চুরি করতে গিয়ে ধরা পড়ল। আপনি দয়ালু মানুষ, তাকে ক্ষমা করে দিলেন। দ্বিতীয়দিন সে এক হাজার টাকা সহ ধরা পড়ল। সে ক্ষমা চাইলে আপনি আবার ক্ষমা করলেন। তৃতীয় দিনও একই ঘটনা, আপনি আবার ক্ষমা করলেন। কিন্তু চতুর্থ দিন যদি সে ১০ হাজার টাকা নিয়ে ধরা পড়ে, তবে কিন্তু আপনি তাকে ক্ষমা করবেন না, যতই সে ক্ষমা চাক। কারণ আপনি জানেন, এবার তাকে ক্ষমা করলে বাকি কর্মচারীরাও চুরি শুরু করবে।(কারণ তারা জানবে যে ধরা পড়লে আপনি ছেড়ে দেবেন)। এজন্য এবার তাকে সাইজ করবেন। তাই নয় কি?
  • মহান আল্লাহও একই কাজ করবেন। একজন ব্যক্তি জিনার মত জঘন্য কাজ করেছে,কিন্তু আল্লাহ তাকে কিছুই করেননি। দ্বিতীয়, তৃতীয়বারও আল্লাহ তাকে ক্ষমা করে দিয়েছেন। কিন্তু আল্লাহর এত ঠ্যাকা নাই যে একজন বারবার হারাম কাজ করবে আর তাকে শুধু শুধু ছেড়ে দেবেন। কারণ একটা লোক ১০ টা মেয়ের সাথে জিনা করার পর ক্ষমা করে দেন, তবে অন্যরা ভাববে, সমস্যা কী? আল্লাহ তো ক্ষমাশীল। ২০ টা করে মেয়ে ভোগ করব আর একদিন ক্ষমা চাইলেই হয়ে যাবে(নাউজুবিল্লাহ)।  এজন্য আল্লাহ তায়া'লা তাকে দুরারোগ্য ব্যাধি দিয়েছেন। এটাও আল্লাহ তায়া’লার এত দয়াশীল যে তাকে বজ্রপাতে মেরে ফেলেন নি,বরং সময় দিয়েছেন যেন সে তাওবা করতে পারে। আল্লাহ চাইলে আখিরাতে তাকে ক্ষমা করতেও পারেন।(সুবহানাল্লাহ)। আর ঐ গল্পের কর্মচারীর কথা মনে আছে? সে যদি ৫ম দিন ৫০০০০ নিয়ে ধরা পড়ত,আপনি হয়তো এক কোপে তার মাথা আলাদা করে ফেলতেন।
  • অতএব, আল্লাহর প্রতি এমন অভিযোগ আনা নিতান্তই বোকামি। নিশ্চয়ই আল্লাহ সর্বোৎকৃষ্ট ক্ষমাশীল। নাস্তিকেরা কখনোই হয়তো বুঝতে চাইবে না,কারণ তাদের অধিকাংশের অন্তরে আল্লাহ মোহর মেরে দিয়েছেন।
করেছেন (165 পয়েন্ট)
ভাই এইডস শুধু মাত্র অবৈধ মেলামেশার কারণে হয় না,  এইডস আক্রান্ত ব্যক্তির ব্যবহৃত  সুই সিরিঞ্জ এবং রক্ত আদান প্রদানেও এইডস ছড়ায়।  আপনার উত্তরটি সম্পুর্ণ নির্ভুল হয়নি
করেছেন (204 পয়েন্ট)
যাই হোক ভালোই কথা বলছেন,তবে শুনেন আমি বলি নাই ক্যান্সার ভালো হয় না।এমনকি এইডস ও ভালো হয়(আল্লাহ বলেন তিনি এমন কোনো রোগ সৃষ্টি করেন নি যার চিকিৎসা নেই।আমি নোঝাতে চেয়েছি ধরেন ক্যান্সার এমন রোগ যা ভালো হয় না।(১০বছর আগেও ভালো হতো না).এমতাবস্থায় কেও যদি বলে অলৌকিকভাবে রোগ ভালো করে দিতে তাহলে ভালো হবে?

সম্পর্কিত প্রশ্নগুচ্ছ

323,129 টি প্রশ্ন

413,718 টি উত্তর

128,187 টি মন্তব্য

177,941 জন নিবন্ধিত সদস্য

বিস্ময় বাংলা ভাষায় সমস্যা সমাধানের একটি নির্ভরযোগ্য মাধ্যম। এখানে আপনি আপনার প্রশ্ন করার পাশাপাশি অন্যদের প্রশ্নে উত্তর প্রদান করে অবদান রাখতে পারেন অনলাইনে বিভিন্ন সমস্যার সমাধানের জন্য সবথেকে বড় এবং উন্মুক্ত তথ্যভাণ্ডার গড়ে তোলার কাজে।
...