বিস্ময় অ্যানসারস এ আপনাকে সুস্বাগতম। এখানে আপনি প্রশ্ন করতে পারবেন এবং বিস্ময় পরিবারের অন্যান্য সদস্যদের নিকট থেকে উত্তর পেতে পারবেন। বিস্তারিত জানতে এখানে ক্লিক করুন...

1 উত্তর

0 টি পছন্দ
করেছেন (3,244 পয়েন্ট)

আল্লাহ তাআলা প্রিয় নবিকে বিশ্ববাসীর জন্য রহমতস্বরূপ পাঠিয়েছেন। সবার ওপর তার মর্যাদা দান করেছেন।

শুধু তাই নয়, ‘আল্লাহ তাআলা মানুষের প্রতি এ মর্মে নির্দেশনা জারি করেছেন যে, ‘প্রিয়নবি সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লামের অনুসরণ করাকে তাঁর অনুসরণ হিসেবে ঘোষণা করেছেন। আল্লাহ তাআলা বলেন, ‘যে (ব্যক্তি) রাসুলের আনুগত্য করল, সে আসলে আল্লাহরই আনুগত্য করল; আর যে মুখ ফিরিয়ে নিল আমি তাদের জন্য আপনাকে প্রহরীরূপে প্রেরণ করিনি।’ (সুরা নিসা : আয়াত ৮০)

আর রাসুল সাঃ এর সঠিক অনুসরণ সম্ভব নয়,সাহাবা (রাঃ)দের অনুসরণ ব্যাতিত৷ সাহাবিগণ সত্যের, ন্যায়ের মাপকাঠি। একেকজন আকাশের এক একটি তারকার মতো।আহলে সুন্নাত ওয়াল জামায়াতের(রাসুলুল্লাহ সঃ কর্তৃক ঘোষিত নাজাত প্রাপ্ত দল) আক্বিদাও এটাই যেالصحابة كلهم عدول অর্থাৎ -সমস্ত সাহাবায়ে কেরাম সত্যের উপর প্রতিষ্ঠিত। আর কোরানে তো স্বয়ং আল্লাহ রাব্বুল আলামীন ঘোষণা করেছেনঃ رضى الله عنهم ورضوا عنه অর্থাৎ -“আল্লাহপাক তাঁদের প্রতি সন্তুষ্ট ও রাজী হয়ে গেছেন এবং তাঁরাও আল্লাহর প্রতি সন্তুষ্ট এবং রাজী হয়ে গেছেন (সুরাবায়্যিনাহ-পারা-৩০) 

এ ব্যাপারে পবিত্র কোরআন, সুন্নাহ এবং ইজমা একমত। স্মরণীয় যে, সাহাবিরাই রসুল (সা.) ও তাঁর উম্মতের মধ্যে প্রথম মধ্যসূত্র। পরবর্তী উম্মত আল্লাহর কালাম পবিত্র কোরআন, কোরআনের ব্যাখ্যা, আল্লাহর রসুলের পরিচয়, তাঁর শিক্ষা, আদর্শ, মোটকথা দীনের সব কিছুই একমাত্র তাদেরই সূত্রে, তাদেরই মাধ্যমে জানতে পেরেছেন। সুতরাং এই প্রথম সূত্র উপেক্ষা করলে, বাদ দিলে অথবা তাদের প্রতি অবিশ্বাস সৃষ্টি হলে দীন, শরিয়তের মূল ভিত্তিই ধসে পড়ে। কোরআন ও হাদিসের প্রতি অবিশ্বাস দানা বেঁধে ওঠে।

(সুতরাং-একথা থেকে স্পষ্ট  যে খাটি মু'মিন-মুসলমান হতে হলে হযরত ছাহাবায়ে কিরাম রদ্বিয়াল্লাহু তায়ালা আনহুম উনাদের অনুসরণ ব্যতিত বিকল্প নেই!)

★কোনো কোনো সাহাবির জীবদ্দশায় রসুল (সা.) তাদের জান্নাতের সুসংবাদ দিয়েছেন। তবে মুসলিম আলেমগণ সাহাবিদের সবাইকে জান্নাতি বলে অভিমত ব্যক্ত করেছেন। ইবনে হাজার ‘আল ইসাবা’ গ্রন্থে স্পেনের ইমাম ইবনে হাজামের মন্তব্য উদ্ধৃত করেছেন। তিনি বলেন, ‘আস-সাহাবাতু কুল্লুহুম মিন আহলিল জান্নাতি কাতআন। ’ অর্থাৎ, ‘সাহাবিদের সবাই নিশ্চিতভাবে জান্নাতি। ’ সাহাবিদের গালি দেওয়া বা হেয়প্রতিপন্ন করা কিংবা সমালোচনা করা সম্পূর্ণ হারাম। রসুলুল্লাহ (সা.) বলেছেন, ‘আমার পরে তোমরা তাদের সমালোচনার লক্ষ্যে পরিণত কর না। তাদের যারা ভালোবাসে, আমার মোহাব্বতের খাতিরেই তারা ভালোবাসে আর যারা তাদের হিংসা করে, আমার প্রতিহিংসার কারণেই তারা তা করে। ’ (মিশকাতুল মাসাবিহ)।

সাহাবিদের মর্যাদা ও তাদের ফজিলত সম্পর্কে পবিত্র কোরআনে বলা হয়েছে, ‘তারাই মুমিন, যারা আল্লাহ ও তাঁর রসুলের প্রতি ইমান আনার পর সন্দেহ পোষণ করে না এবং আল্লাহর পথে জান ও মাল দ্বারা জিহাদ করে। তারাই (সাহাবিগণ) সত্যনিষ্ঠ বা সত্যবাদী। (হুজুরাত-১৫)।

সুতরাং-একজন খাটি মুমিন হতে গেলে আল্লাহ ও তার রাসুল সাঃ এর অনুসরণ আবশ্যিক৷ আর আল্লাহও তার রাসুল সাঃ এর সঠিক অনুসরণ এর জন্য সাহাবিদের (রাঃ) অনুসরণ ব্যাতিত বিকল্প নেই৷            

সম্পর্কিত প্রশ্নগুচ্ছ

350,184 টি প্রশ্ন

444,217 টি উত্তর

139,215 টি মন্তব্য

187,259 জন নিবন্ধিত সদস্য

বিস্ময় বাংলা ভাষায় সমস্যা সমাধানের একটি নির্ভরযোগ্য মাধ্যম। এখানে আপনি আপনার প্রশ্ন করার পাশাপাশি অন্যদের প্রশ্নে উত্তর প্রদান করে অবদান রাখতে পারেন অনলাইনে বিভিন্ন সমস্যার সমাধানের জন্য সবথেকে বড় এবং উন্মুক্ত তথ্যভাণ্ডার গড়ে তোলার কাজে।
...