বিস্ময় অ্যানসারস এ আপনাকে সুস্বাগতম। এখানে আপনি প্রশ্ন করতে পারবেন এবং বিস্ময় পরিবারের অন্যান্য সদস্যদের নিকট থেকে উত্তর পেতে পারবেন। বিস্তারিত জানতে এখানে ক্লিক করুন...
69 জন দেখেছেন
"টিউটোরিয়াল" বিভাগে করেছেন (438 পয়েন্ট)
আমি একটি বিসিএস প্রশ্নে দেখলাম।দুইটি সংখ্যা দেয়া আর বলা বাইনারি পদ্ধতিতে যোগ কর।এই বাইনারি পদ্ধতির ইতিহাস কি?

2 উত্তর

+2 টি পছন্দ
করেছেন (14 পয়েন্ট)
বাইনারি সংখ্যা পদ্ধতি বা দ্বিমিক সংখ্যা পদ্ধতি  (ইংরেজি: Binary number system) একটি সংখ্যা পদ্ধতি যাতে সকল সংখ্যাকে কেবলমাত্র ০ এবং ১ দিয়ে প্রকাশ করা হয়। এই সংখ্যা পদ্ধতির ভিত্তি দুই। ডিজিটাল ইলেকট্রনিক যন্ত্রপাতির লজিক গেটে এই সংখ্যাপদ্ধতির ব্যাপক প্রয়োগ রয়েছে। তাছাড়া প্রায় সকল আধুনিক কম্পিউটারে বাইনারি সংখ্যা পদ্ধতি ব্যবহার করা হয়। বাইনারি পদ্ধতিতে প্রতিটি অঙ্ককে বিট বলা হয়।

সংখ্যা পদ্ধতিকে সাধারণত ৪ ভাগে ভাগ করা হয়। (১) ডেসিমেল নাম্বার সিস্টেম, (২) বাইনারী নাম্বার সিস্টেম, (৩) অক্টাল নাম্বার সিস্টেম ‍ও (৪) হেক্সা ডেসিমেল নাম্বার সিস্টেম। ডেসিমেল নাম্বার সিস্টেমে অঙ্ক ১০ টি অর্থাৎ এর বেজ ১০ (১,২,৩,৪,৫,৬,৭,৮,৯,০)। অনুরূপভাবে বাইনারী নাম্বার সিস্টেমের বেজ ২ (১,০), অক্টাল নাম্বার সিস্টেমের বেজ ৮ (১,২,৩,৪,৫,৬,৭,০), হেক্সা ডেসিমেল নাম্বার সিস্টেমের বেজ ১৬(১,২,৩,৪,৫,৬,৭,৮,৯,A,B,C,D,E,F, ০ )।
+1 টি পছন্দ
করেছেন (32 পয়েন্ট)
বাইনারি খুবই মজার আর খুবই সহজ একটা সংখ্যা পদ্ধতি। আমরা জানি, সংখ্যা পদ্ধতি ২ ধরনের। যথা :positional (ex:1,2,3,4) & nonpositional(ex:রোমান সংখ্যা)। আর positional সংখ্যা পদ্ধতির মধ্যে একটা হলো বাইনারি সংখ্যা পদ্ধতি। বাইনারি সংখ্যা মূলোত ব্যাবহ্রিত হয় electrinic device এ। বাইনারি সংখ্যা পদ্ধতিতে সীমা হলো (0,1)। অর্থাৎ বাইনারি এর সকল সংখ্যা 0 আর 1 দিয়ে লেখা হবে। এখন কথায় আসি কিভাবে বাইনারি সংখ্যার যোগ করতে হয়। একটা example দেইঃ    (1001101)+(1101001)=10110110(বাইনারি সংখ্যা পদ্ধতিতে 0=off আর 1= on) যোগ  করার পদ্ধতিঃ মনে করেন আপনি (111+101) যোগ  করবেন। সাধারন যোগ  এর মতন সংখ্যা দুটিকে উপুরে ও নিচে লেখে ডান থেকে বামে যোগ  করবেন। শুধু বাইনারি যোগে পার্থক হলো যোগ  ফল এ কনো সংখ্যাই 0/1  এর চেয়ে বড় হওয়া যাবে না। উপুরের সংখ্যাটা কে ডান থেকে যোগ  করা শুরু করলে দেখা যায় প্রথম সংখ্যাটাই 0/1 এর চেয়ে বড় আশে। 0/1 এর চেয়ে যোগফল এর কনো সংখ্যা বড়  আসলে অই সংখ্যা কে (base অর্থাৎ 2)(বাইনারি সংখ্যার ক্ষেত্রে base কে 2 ধরা হয়) দারা ভাগ করে ভাগশেষ কে যোগ ফল এর অই সংখ্যার স্থলে বসাতে হয় আর ভাগফল কে পরবর্তি সংখ্যার সাথে যোগ  করতে হয়। এভাবে বাইনারি পদ্ধতি তে যোগ  করতে হয়।  বাইনারি সংখ্যা পদ্ধতিকে দ্বিমিতিক পদ্বতিও বলা হয়। এ পদ্ধতি তে ব্যাবহৃত base(0,1) কে সংখেপে বিট (BIT=Binary digIT) বলে। এটি বর্তমান computer এর মৌলিক একক। সাধারণত 8bit=1byte.বাইনারি সংখ্যা পদ্ধতি হলো সরলতম গণনা পদ্ধতি।
করেছেন (10 পয়েন্ট)
যে সংখ্যা পদ্ধতিতে ০ ও ১ এই দুইটি প্রতিক বা চিহ্ন ব্যবহার করা হয় তাকে বাইনারি সংখ্যা পদ্ধতি বলে।
বাইনারি সংখ্যা পদ্ধতিতে যেহেতু ০ এবং ১ এই দুইটি প্রতিক বা চিহ্ন ব্যবহার করা হয় তাই এর বেজ বা ভিত্তি হচ্ছে ২।
বাইনারি সংখ্যা পদ্ধতির ০ এবং ১ এই দুটি মৌলিক কে বিট বলে এবং আট বিটের গ্রুপ নিয়ে গঠিত হয় একটি বাইট।
সকল ইলেক্ট্রনিক্স ডিভাইস শুধুমাত্র দুটি অবস্থা অর্থাৎ বিদ্যুতের উপস্থিতি এবং অনুপস্থিতি বুজতে পারে। বিদ্যুতের উপস্থিতিকে ON, HIGH, TRUE কিংবা YES বলা হয় যা লজিক লেভেল ১ নির্দেশ করে এবং বিদ্যুতের অনুপস্থিতিকে OFF, LOW, FALSE কিংবা NO বলা হয় যা লজিক লেভেল ০ নির্দেশ করে। লজিক লেভেল ০ এবং ১ বাইনারি সংখ্যা পদ্ধতির সাথে সামঞ্জন্যপূর্ণ। তাই কম্পিউটার বা সকল ইলেক্ট্রনিক্স ডিভাইসে বাইনারি সংখ্যা পদ্ধতি ব্যবহৃত হয়।

সম্পর্কিত প্রশ্নগুচ্ছ

2 টি উত্তর

341,643 টি প্রশ্ন

434,814 টি উত্তর

135,947 টি মন্তব্য

184,316 জন নিবন্ধিত সদস্য

বিস্ময় বাংলা ভাষায় সমস্যা সমাধানের একটি নির্ভরযোগ্য মাধ্যম। এখানে আপনি আপনার প্রশ্ন করার পাশাপাশি অন্যদের প্রশ্নে উত্তর প্রদান করে অবদান রাখতে পারেন অনলাইনে বিভিন্ন সমস্যার সমাধানের জন্য সবথেকে বড় এবং উন্মুক্ত তথ্যভাণ্ডার গড়ে তোলার কাজে।
...