বিস্ময় অ্যানসারস এ আপনাকে সুস্বাগতম। এখানে আপনি প্রশ্ন করতে পারবেন এবং বিস্ময় পরিবারের অন্যান্য সদস্যদের নিকট থেকে উত্তর পেতে পারবেন। বিস্তারিত জানতে এখানে ক্লিক করুন...
37 জন দেখেছেন
"ধর্ম ও আধ্যাত্মিক বিশ্বাস" বিভাগে করেছেন অজ্ঞাতকুলশীল

2 উত্তর

+1 টি পছন্দ
করেছেন (1,099 পয়েন্ট)
আপনাকে আল্লাহ তায়ালা ক্ষমা করে দিবেন।কিন্তু এর জন্য আপনাকে অবশ্যই কাফফারা দিতে হবে।

এই প্রসঙ্গে নিচে দিলাম ~~~

হাদিসের মধ্যে কসম সম্পর্কে বলা আছে। সেটা হলো গায়রুল্লাহর নামে কসম করা শিরক। 

হাদিসে এসেছে, 

‘তোমরা তোমাদের বাপ-দাদার নামে কসম করো না।’ আরো এসেছে, ‘যে আল্লাহ রাব্বুল আলামিনের নাম বাদ দিয়ে গায়রুল্লাহর নামে হলফ করল, কসম করল, সে শিরক করল।’ এ জন্য গায়রুল্লাহর নামে কসম করা সম্পূর্ণরূপে শিরক। কিন্তু কোরআনে কারিমকে স্পর্শ করে, কোরআনে কারিমের নামে যদি কেউ কসম করে থাকে, তাহলে সেটি শিরক হবে না। 

যেহেতু কোরআন আল্লাহর কালাম। কোরআন সম্পর্কে তিনটি আকিদা হলো সুন্নতে জামাতের অপরিহার্য। তার মধ্যে একটি হলো এটি আল্লাহর কালাম, তা বিশ্বাস করতে হবে। আর আল্লাহ রাব্বুল আলামিনের কালাম যেগুলো সেগুলো সেফাতুল্লাহি সুবাহানতায়ালা, আল্লাহর গুণ। সুতরাং যেমনিভাবে আপনি ‘আর রাহমান’ এই নাম দিয়ে কসম করতে পারেন, তেমনিভাবে কোরআনে কারিমের নামে আপনি কসম করতে পারবেন। 

কিন্তু এই কসম যদি কেউ করে থাকেন, অবশ্যই তাঁকে এই কসম রক্ষা করতে হবে। আর কসম ভঙ্গ করলে তাঁকে ‘কাফ্ফারাতুল কসম’ বা ‘কাফ্ফারাতুল ইয়ামিন’, অর্থাৎ কসমের যে কাফ্ফারা আছে, তাঁকে সেটি আদায় করতে হবে। যেহেতু কসম কোরআনে কারিমের হরমতের সঙ্গে সম্পৃক্ত। 

কাফ্ফারাটা হলো: 

সে বিষয়ে কোরআনের মধ্যে আল্লাহতায়ালা বলেছেন, ‘এই কাফ্ফারা হচ্ছে ১০ জন মিসকিনকে, তোমরা যা খাও সেই খাবারের আয়োজন করবে একবেলা অথবা তাদের পোশাক দেওয়ার ব্যবস্থা করবে অথবা গোলাম আজাদ করবে। আর যদি এর কোনো একটি করতে সে সক্ষম না হয়, তাহলে তিন দিন একাধারে সিয়াম পালন করবে।

(সংগৃহীত )
0 টি পছন্দ
করেছেন (135 পয়েন্ট)
অবশ্যয় মাফ করবে,,,,কেননা আল্লাহ অতি দয়ালু আর ক্ষমাশীল,,,,,,সে পাপ যেন চিরতরে আর করবেনা বলে তওবা করতে হবে এমনভাবে,,,,

সম্পর্কিত প্রশ্নগুচ্ছ

4 টি উত্তর
আমি জিনা করেছিলাম।আমি আল্লাহর কাছে মনে মনে অনুতপ্ত হয়েছি,ক্ষমা চেয়েছি কিন্তু নামাজ পরে তওবা করিনি।আমি তখন জানতাম না যে এরকম ব্যভিচার করলে পবিত্র কাউকে বিয়ে করা যায়না।আমি আমার স্বামীকে বিয়ের আগে জানিয়েছিলাম যে আমার আগে একজনের সাথে সম্পর্ক ছিল কিন্তু জিনার কথা লজ্জায় বলিনি।বিয়ের কিছুিদন পর সে সব জেনে যায়।এখন সে আমাকে খুব সন্দেহ করে।আমি জানি সেটা তার দোষ না।কিন্তু আমাদের সংসার প্রায় ভেঙ্গে যাওয়ার পথে।আমি ইস্তেগফারের নামাজ পরে আল্লাহর কাছে মাফ চেয়েছি।আমি আমার স্বামীকে অনেক ভালোবাসি।কিন্তু কিভাবে সব ঠিক হবে বুঝি না।আমার জন্য দোয়া করবেন যেন আল্লাহ আমাকে মাফ করেন।?
06 জানুয়ারি 2016 "ধর্ম ও আধ্যাত্মিক বিশ্বাস" বিভাগে জিজ্ঞাসা করেছেন সিমিন (11 পয়েন্ট)

307,086 টি প্রশ্ন

395,987 টি উত্তর

121,015 টি মন্তব্য

170,159 জন নিবন্ধিত সদস্য

বিস্ময় বাংলা ভাষায় সমস্যা সমাধানের একটি নির্ভরযোগ্য মাধ্যম। এখানে আপনি আপনার প্রশ্ন করার পাশাপাশি অন্যদের প্রশ্নে উত্তর প্রদান করে অবদান রাখতে পারেন অনলাইনে বিভিন্ন সমস্যার সমাধানের জন্য সবথেকে বড় এবং উন্মুক্ত তথ্যভাণ্ডার গড়ে তোলার কাজে।
...