বিস্ময় অ্যানসারস এ আপনাকে সুস্বাগতম। এখানে আপনি প্রশ্ন করতে পারবেন এবং বিস্ময় পরিবারের অন্যান্য সদস্যদের নিকট থেকে উত্তর পেতে পারবেন। বিস্তারিত জানতে এখানে ক্লিক করুন...
185 জন দেখেছেন
"প্রেম-ভালোবাসা" বিভাগে করেছেন (273 পয়েন্ট)
 আমি আমার স্ত্রীকে কিভাবে সবসময় নিজের কন্ট্রোল এ রাখব বা সর্বদা আমার কথার বাহিরে কোন কাজ করবে না

3 উত্তর

+1 টি পছন্দ
করেছেন (12,555 পয়েন্ট)
 
সর্বোত্তম উত্তর

ভাই, এ কি বলছেন আপনি আপনার স্ত্রীকে কন্ট্রোলে রাখবেন। আচ্ছা আপনার স্ত্রী কি এমন কাজ করেছে যে তাকে কন্ট্রোলে রাখতে হবে । সে কি রকমন কাজ   করেছে যা  আপনার কথার বাহিরে যাচ্ছে। তবে ভাই আপনার স্ত্রী আপনার কথার বাহিরে যাওয়া মূল কারন হলো আপনি নিজেই তাই আগে আপনি নিজেই সচেতন হোন। ↓

কেনো না  আপনি কি জানেন যে  একজন স্ত্রী কি চায় বা তার চাওয়া পাওয়া কি।

একজন স্ত্রী চায় তার স্বামী  সব  সময় কাছে থাকে তাকে আদর সম্মান, মর্যাদা, ও অনেক অনেক ভালোবাসা চায় যা একজন স্ত্রী তার স্বামীর কাছে দুর্বল হয়ে যায় তার স্বামীকেও অনেক ভালোবাসে।

আপনি বলছেন যে আপনার  স্ত্রীকে কন্ট্রোলে  রাখতে হবে আচ্ছা আমি মেনে নিলাম  যে   আপনি  তাকে কন্ট্রোলে রাখেন । তবে এতে করে আরো সমস্যা বেরে যাওয়া আশঙ্কা বেশি থাকবে  । হয়তো এমন এক কাজ করলেন যা আপনার  চোখে পানি আশার মত ।   

হয়তো আপনার স্ত্রী আপনার কোন কথাই শুনে না আপনার কোন কাজে সে প্রাধান্য দেয় না, আপনার কোন চাওয়া পাওয়াকে উৎসাহিত করে না, সামান্য কথায় আপনার সাথে ঝগড়া করে,আপনার প্রতি তার বিশ্বাস থাকে না বা সে আপনার প্রতি কোন যত্নশীল হোন না। ইত্যাদি সমস্যা হতে পারে তার ও আপনার মাঝে ।

তবে এই সকল সমস্যা সমাধানের   উপায় যা হলো  আপনার প্রতি তার বিশ্বাস, আশা,  সম্মান,ভালোবাসা জাগিয় তুলতে হবে। 

তার জন্য আপনার স্ত্রীকে মানুসিক ও শারীরিক সুখ দিতে হবে, তার প্রতি আপনার আদর,ভালোবাসা, সম্মান, ও তার প্রতি আপনার  বিশ্বাস রাখতে হবে ।

 মনে রাখবেন স্ত্রীদের  অবিশ্বাস করলে তারা খুবেই কষ্ট পায় যে সে মনে করে তার আপন জনেই তাকে অবিশ্বাস করে অন্যরা কি বলবেন।  

তাই বলছি ভাই আপনার স্ত্রীকে আদর করুন,  আপনার স্ত্রীকে ভালোবাসুন,আপনার স্ত্রীকে সম্মান করুন, আপনার স্ত্রীকে বিশ্বাস করুন, আপনার স্ত্রীর প্রতি যত্নশীল হোন, আপনার স্ত্রীর পছন্দের জিনিস গুলো এনে দিন, আপনার স্ত্রীর পছন্দের   খাবার  খাওয়ান, ভাই সারা দিনে যতই আপনারা ঝগরা করেন না কেনো মনে রাখবেন রাতে কিন্তু এক ঘরে ,এক খাটে, এক ,বালিশে মাথা রেখেই ঘুমান তাহলে স্ত্রীকে কন্ট্রোল করতে কোন কিছুর   প্রয়োজন হয় না ভাই।  প্রিয় মানুষ্টির সাথে যতই  দিনের বেলায়   ঝগরা বা কথা কাটাকাটি করেন না কেনো    যখন এক ঘরে ,এক খাটে, এক ,বালিশে মাথা রেখে তাকে জরিয়ে ধরে ঘুমাবেন দেখবেন সকালে সে সব কিছুই ভুলে গেছে এতে কন্ট্রোল করার কোন প্রয়োজন পরে না ।   ভাই মেয়েদের অনেক কিছুই ত্যাগ  করতে হয় আপনি কি জানেন → তারা সব কিছুই ত্যাগ করে, বাবা, মা, আদরের ভাই, বোন, ছোট বেলার খেলার সাথি,  এমন কি সব আপনজনকে ছেড়ে শুধু তার স্বামীর হাত ধরে  চলে আসে এটা ভেবে যে তার নতুন জীবনে তার স্বামী সব আর সেই স্বামীই  যদি ঐ মেয়েটির সাথে এমন আচরন করে যা অসহনীয়।  শশুর বাসার আপন জন বলতে তার এক মাত্র স্বামী   আর সেই স্বামী যদি তার স্ত্রীকে কন্ট্রোল রাখার জন্য অন্যান্য পদ্ধতি অবলম্বন করে তাহলে ঐ  স্ত্রীর আপন জন বলতে কেউই থাকলো না। তাই ভালো হবে স্ত্রীকে আপন করে নিন,  তাকে ভালোবাসুন তাকে সব সময় হাসি খুসিতে রাখুন, তার সাথে মজা করুন,  দেখবেন তাকে কন্ট্রোল করতে লাগবে না।  তাই বর্তমান আপনার  নিজের মন , ও তার প্রতি অবিশ্বাস করা থেকে নিজেকে কন্ট্রোলে রাখুন দেখবেন সব ঠিক হয়েছে।

,আশা করি কথা  আমার গুলো বুঝতে পারছেন

0 টি পছন্দ
করেছেন (13,415 পয়েন্ট)
**স্ত্রীকে শারীরিকভাবে কখনও লাঞ্ছিত করবেন না। এতে আপনার প্রতি শ্রদ্ধাবোধ ও ভয় কমে যাবে।

**আপনি আপনার স্ত্রীর সমস্যার কথাগুলো মন দিয়ে শুনুন। দেখুন তিনি কি বলতে চান,তার সমস্যাগুলি গুরুত্ব দিন এবং তা সমাধান করার চেষ্টা করুন। দেখবেন তিনি আপনার উপর সন্তুষ্ট হবেন এবং আপনার কথা মেনে চলবে।

**আপনি আপনার স্ত্রীর সৌন্দর্য এবং কাজের প্রশংসা করুন।

**মেয়েরা মুখে প্রশংশা বেশি পছন্দ করে। তাকে বলুন আপনি তাকে কেন এত ভালোবাসেন। আপনার জীবনে তার অবস্থান তার মুল্য তাকে স্পষ্ট করে বুঝিয়ে বলুন।

**কখনোই তার উপর জোর করবেন না,খারাপ ব্যবহার বা ভয় দেখাবেন না।

**অফিস থেকে বাসায়ে ফিরে প্যান্ট থেকে মানিব্যাগ বের করে তার হাতে ধরিয়ে দিতে পারেন,এতে দেখবেন তিনি আপনার উপর একটু বেশি ই সন্তুষ্ট হবেন...!!

**তার মতামতকে প্রাধান্য দিন।

মনে রাখবেন আপনার স্ত্রী আপনার উপর সন্তুষ্ট হলেই সে আপনার কন্ট্রোলে আসবে বা আপনাকে প্রাধান্য দিবে।
0 টি পছন্দ
করেছেন (5,852 পয়েন্ট)

আপনি যেটার সমাধান চাচ্ছেন সেটা সম্ভব হবে না সঠিক পথ অবলম্বন না করলে। যদি ভেবে থাকেন তাকে শ্বাসন করে আপনার কথায় উঠাবে আর বসাবেন। তাহলে সেটা একদম ভুল রাস্তা। কি যে বলি ভাই এমন কিছু  মানুষ আছে যারা এই ধরণের ভুল পরামর্শ দিতে আগে আগে থাকে।  সব সময় আমি যেটা বলে থাকি সেটা হলো- "ভালোবাসা যেখানে থাকে সেখানে অসম্ভব কাজ অতি সহজ হয়ে যায়। শ্বাসন করে যা হয়। ভালোবাসা দিয়ে তা হয়ে যায়" আপনি যদি আপনার ভালোবাসা দিয়ে তাকে নিজের কাছে রাখতে পারেন। তবে সেটাই হবে আপনার জন্য বড় একটা বিজয়। একটু দেখুন - কারো মনের উপর আজ পর্যন্ত কেউ জোরজুলুম করে জয়ী হতে পারেননি। জেনে রাখুন মনের উপর জোরজুলুম করে কাউকে বেঁধে রাখার সামর্থ্য এই পৃথিবীর কারো নেই। কেবল মাত্র সৃষ্টিকর্তা ছাড়া। নিজের উপর আত্মবিশ্বাস রাখুন। এই বিশ্বাস রেখে কাজ করুন - আপনি তার মন জয় করতে পারবেন আপনার ভালোবাসা দিয়ে।ভালোবাসা দিয়ে মানুষের মন জয় করা খুবই সহজ হলেও ভালোবাসা খুবই কঠিন একটা জিনিস।ভালো বাসতে হলে অনেক কিছু ত্যাগ করতে হয়। ত্যাগের মধ্যে আছে- আপনার অহংকার, আপনার নিজের মতামত বেশি গুরুত্ব দেওয়া, তার মতামত কম গুরুত্ব দেওয়া, তার সাথে একসাথে কাজ না করলে কাজ করা, নিজেকে বুঝিয়ে তার সাথে হাত লাগিয়ে কাজ করা। 


ভালোবাসা তৈরি করার পদ্ধতি → 
আপনি তার কথা বেশি গুরুত্ব দিবেন।  কোন বিষয় নিয়ে ঝামেলা হলে তার সাথে ঝগড়া না করে তার সামনে নত হওয়া। সে যা বলবে সেটাই মেনে নিবেন পরিবেশ খারাপ দেখলে। সব ক্ষেত্রে কখনোই মেনে নিবেন না যখন মিথ্যা বলবে। তার কাছে কিছুই লুকাবেন না। তাকে সত্যি কথা বলবেন সর্বদা, সম্পর্কে ছোট খাটো ফাটল ধরার সম্ভাবনা থাকলে বলার প্রয়োজন নাই।  
  1. ভালোবাসা ধরে রাখতে আগে আপনার উচিৎ তার অসুবিধা দেখা এবং তাকে কিছু সুযোগ সুবিধা দেওয়া। সুযোগ সুবিধা না দিলে সে কেন আপনার ভালোবাসা বুঝবে। সে কেমনে বুঝবে আপনি তাকে আসলেই ভালোবাসেন!  তার সমস্যায় আপনি সাহায্য করলেই না সে আপনার ভালোবাসা বুঝবে। তাকে একটু বাহিরে ঘুড়িয়ে তার ক্লান্তি দূর করলেই তো হলো সে আপনাকে যত বুঝবে তত আপনাকে ভালোবেসে ফেলবে। যার ফলে সে নিজেকে আপনার কথা চালাবে।
  2. ভালোবাসা বোঝাবেন ছেলে খেলা নয়। অতএব আপনি তাকে রাগারাগি করার সুযোগ দিবেন না নিজের ভালোবাসা দিয়ে। রাগারাগি হয়ে গেলে তাকে একটু হাসিয়ে রাগ ভাঙ্গাতে পারেন। রাগ হলে কারোরই নিজের উপর নিয়ন্ত্রণ থাকে না তাই আগে নিজেকে এমন ভাবে তার সামনে নিয়ে যাবেন না যার ফলে তার রাগ আরো বৃদ্ধি পায়।
  3. তাকে বোঝার চেষ্টা করবেন ।তাকে বুঝে তার সমস্যা খুঁজে তাকে সমাধান দিবেন।
তার নিজের  কাজ বলে কিছু রাখবেন না। তার কাজ হয়ে উঠবে আপনার কাজ। আপনি তাকে সাহায্য করতে এগিয়ে থাবেন ।  সম্পর্ক ঠিক রাখবেন। দুইজনের সমস্যা হলে তৃতীয় কাউকে এর মধ্যে আসতে দিবেন না। 

যদি সম্পর্ক মজবুত করতে পারেন তবেই উক্ত কাজ করা সম্ভব  

আশাকরি বুঝতে | বিস্ময়ের সাথেই থাকুন|
করেছেন (273 পয়েন্ট)
ভাই আমি আমার স্ত্রীকে প্রচন্ড রকমের ভালবাসি বিশ্বাস,সম্মান ও তার মতামতের বাহিরে কোন কাজ করি না কিন্তু কথা হচ্ছে তার সব আচার ব্যবহার ওঠা বসা ঠিক আছে কিন্তু আমার পিতা মাতার সাথে খারাপ আচরন করে। বারবার বোঝানোর পর ও কোন কাজ হচ্ছে না এমতাবস্থায় কি করব.....?
করেছেন (5,852 পয়েন্ট)
খারাপ ব্যাবহার কেন করে? কারণ কি জানা আছে আপনার?
করেছেন (273 পয়েন্ট)
আমি সারাদিন অফিসে থাকি বাসায় আসলে বলে আপনার আম্মা এইটা করছে ঐইটা করছে বিভিন্ন ধরনের অভিযোগ শেষ নেই।
টি উত্তর

সম্পর্কিত প্রশ্নগুচ্ছ

1 উত্তর
20 জুলাই 2017 "সাধারণ" বিভাগে জিজ্ঞাসা করেছেন সাঈদুর রহমান (247 পয়েন্ট)

305,142 টি প্রশ্ন

393,898 টি উত্তর

119,945 টি মন্তব্য

169,154 জন নিবন্ধিত সদস্য

বিস্ময় বাংলা ভাষায় সমস্যা সমাধানের একটি নির্ভরযোগ্য মাধ্যম। এখানে আপনি আপনার প্রশ্ন করার পাশাপাশি অন্যদের প্রশ্নে উত্তর প্রদান করে অবদান রাখতে পারেন অনলাইনে বিভিন্ন সমস্যার সমাধানের জন্য সবথেকে বড় এবং উন্মুক্ত তথ্যভাণ্ডার গড়ে তোলার কাজে।
...