বিস্ময় অ্যানসারস এ আপনাকে সুস্বাগতম। এখানে আপনি প্রশ্ন করতে পারবেন এবং বিস্ময় পরিবারের অন্যান্য সদস্যদের নিকট থেকে উত্তর পেতে পারবেন। বিস্তারিত জানতে এখানে ক্লিক করুন...
106 জন দেখেছেন
"দুয়া ও যিকির" বিভাগে করেছেন (5,975 পয়েন্ট)
পূনঃরায় খোলা করেছেন

(হাদীসের আলকে উত্তর চাই)

করেছেন (9,200 পয়েন্ট)

এই লিংক এ প্রবেশ করুন

উক্ত লিংক এ যেয়ে পূরা আর্টিকেল টা পড়লে আপনার যত প্রশ্ন সকল প্রশ্নের উত্তর জানতে পারবেন এবং নিজেকে সঠিক ভাবে পরিচালনা করতে পারবেন ইন শা আল্লাহ্   

করেছেন (5,975 পয়েন্ট)
আমি উত্তর তো জানি। মানুষের উপকারের জন্য প্রশ্ন করেছি। লিংক না দিয়ে সরাসরি উত্তর দেন আপু। বিস্ময়ের সাধারণ মানুষের সঠিক পথে আনার জন্য প্রশ্নটি করেছি।

1 উত্তর

+2 টি পছন্দ
করেছেন (7,601 পয়েন্ট)
নির্বাচিত করেছেন
 
সর্বোত্তম উত্তর
পীর শব্দটি ফার্সি। শব্দগতভাবে এর অর্থ হলো জ্ঞানী। কুরআন হাদিসে যাদের আউলিয়া, মুর্শিদ ও শায়খ বলা হয়েছে, ফার্সিতে তাদের পীর সাহেব বলা হয়।

পীর হচ্ছে ওস্তাদ। কেউ যদি নিজে নিজে সঠিক পথ পাওয়ার চেষ্টা করে তার ভ্রষ্টতাই স্বাভাবিক। তাই আউলিয়া, মুর্শিদ, শায়খ এবং পীরের কাছে কুরআন ও হাদীস শিখার জন্য পীর বা ওস্তাদ ধরে এটা তার জন্য হারাম হবেনা।

যেমন ওস্তাদ কেবল একটা ধারাই বাঞ্ছনীয় নয়। শিক্ষার্থী মুসলিমের উচিৎ, যাকে হকপন্থী অভিজ্ঞ আলেম দেখবে, তাকেই ওস্তাদ বলে গণ্য করবে। যেহেতু মুসলিম কোন ব্যক্তি দেখে হক চেনে না, বরং হক দেখে ব্যক্তি চেনে। সুতরাং যে পীর বা ওস্তাদ নবী মুহাম্মদ (সাঃ) এর অনুসারী নয়, তাকে নিজের পীর বা ওস্তাদ বানানো বৈধ নয়। পক্ষান্তরে যিনিই কুরআন ও সহিহ সুন্নাহর অনুসারী, তিনিই মুসলিমের ওস্তাদ হওয়ার যোগ্য। অতএব প্রত্যেক হক পন্থী আলেমই মুসলিমের ওস্তাদ।

মহান আল্লাহ বলেছেন, তোমরা যদি না জান, তাহলে জ্ঞানীদেরকে জিজ্ঞাসা কর। ( নাহলঃ ৪৩, আম্বিয়াঃ ৭)

মহান আল্লাহ আরো বলেছেন, হে বিশ্বাসীগণ! যদি তোমরা আল্লাহ ও পরকালে বিশ্বাস কর, তাহলে তোমরা আল্লাহর অনুগত হও, রাসুল ও তোমাদের নেত্রীবর্গ (ও উলামা)-দের অনুগত হও। আর যদি কোন বিষয়ে তোমাদের মধ্যে মতভেদ ঘটে, তাহলে সে বিষয়কে আল্লাহ ও রাসুলের দিকে ফিরিয়ে দাও। এটিই হল উত্তম ও পরিণামে প্রকৃষ্টতর। (নিসাঃ ৫৯)

জনাব! মাদরাসায় যিনি শিক্ষা প্রদান করেন, তার নাম হল টিচার, মুআল্লিম, শিক্ষক বা উস্তাদ। তেমনি কুরআন ও হাদীসের উপর আমল প্রশিক্ষণ দাতার নাম হল পীর, মুর্শীদ।

এখন প্রশ্ন হতে পারে কুরআন ও হাদীস থাকতে পীর ধরবো কেন?

কুরআন ও হাদীস থাকতে, তা শিখার জন্য উস্তাদের কাছে যাবো কেন?

এক্ষেত্রে জেনে রাখা উচিত যে, যেমন দ্বীন শিখা আবশ্যক। তেমনি দ্বীনের উপর সহীহ পদ্ধতিতে আমল করাও আবশ্যক। এখন কোন ব্যক্তি যদি উস্তাদের কাছে না গিয়ে, মাদরাসায় ভর্তি না হয়ে দ্বীন শিখে ফেলতে পারে, তাহলে তার যেমন মাদরসায় ভর্তি হবার, উস্তাদের কাছে যাবার দরকার নেই। কারণ তার মূল উদ্দেশ্য হাসিল হয়ে গেছে।

তেমনি কোন ব্যক্তি যদি পীর তথা মুর্শীদের কাছে না গিয়েই সে তার আত্মশুদ্ধি করে ফেলতে পারে, তাহলে তার জন্য কোন পীর বা মুর্শীদের কাছে যাবার কোন প্রয়োজন নেই। কারণ পীর বা মুর্শীদের কাছে যাবার যে প্রয়োজনীয়তা যে উদ্দেশ্যে ছিল তা তার অর্জিত হয়ে গেছে।

কারো যদি নিজে নিজে কুরআন ও সুন্নাহ অনুপাতে স্বীয় আত্মশুদ্ধি হয়ে যায়, তাহলে কোন পীর বা শিক্ষকের কাছে যাবার কোন প্রয়োজন নেই। যদি না হয়, তাহলে পীর বা শিক্ষকের কাছে গিয়ে স্বীয় নফসের শুদ্ধায়ন করা আবশ্যক।

বাকি উস্তাদের কাছে শিক্ষা গ্রহণ করতে গিয়ে যেমন আমরা দেখি উক্ত বিষয়ে শিক্ষক নিজে প্রাজ্ঞ কি না?

তেমনি দ্বীনী শরীয়ত অনুসরণে মনকে আত্মাশুদ্ধি করতে গিয়ে অবশ্যই ভাল করে যাচাই করতে পীর সাহেব নিজের আত্ম শুদ্ধ করেছেন কিনা?

এর সহজ পথ হল, পীর সাহেব কুরআন ও হাদীস সম্পর্কে অভিজ্ঞ কিনা?

তিনি সুন্নাতের পাবন্দ কি না?

তার চেহারা, তার আখলাক, তার পরিবার, তার আমল, তার জীবনের বাঁকে বাঁকে সুন্নাতের অনুসরণ আছে কি না?

তিনি দুনিয়া বিমুখ কিনা?

পর্দাসহ যাবতীয় শরীয়তের মাসায়েলের কঠোর পাবন্দ কি না?

ইত্যাদি সমস্ত বিষয় দেখতে হবে। যদি কোন একটি বিষয়েও তাকে গাফেল দেখা যায়, তাহলে এমন পীর বা শিক্ষকের কাছে শিখতে যাওয়া, নিজের ঈমান আমলকে ধ্বংস করার শামিল হবে। তাই দেখে শুনে, যাচাই করে পীরের কাছে যাওয়া উচিত।

বর্তমানে দেখা যাচ্ছে কিছু ভন্ড ও ঈমানবিধ্বংসী পীরের আগমন। এসব ভন্ড ও ঈমানবিধ্বংসী পীরের কাছে গেলে আখেরাত ধ্বংস হবে এতে কোন সন্দেহ নেই। তাই পীর ধরার ক্ষেত্রে খুবই সাবধানতা অবলম্বন করতে হবে। স্থানীয় হক্কানী কওমী মাদরাসা পড়ুয়া বড় কোন আলেমের পরামর্শে পীর ধরতে যান। কোন ভন্ড পীরের খপ্পরে পরে নিজের দ্বীন ও ঈমান ধ্বংস করবেন না।

[লুৎফুর রহমান ফরায়েজী লিখন থেকে আংশিক সংগ্রহ]

সম্পর্কিত প্রশ্নগুচ্ছ

2 টি উত্তর
6 টি উত্তর
09 ফেব্রুয়ারি 2016 "ইসলাম" বিভাগে জিজ্ঞাসা করেছেন Abdullah Bin Arshad (12 পয়েন্ট)

312,115 টি প্রশ্ন

401,699 টি উত্তর

123,417 টি মন্তব্য

172,988 জন নিবন্ধিত সদস্য

বিস্ময় বাংলা ভাষায় সমস্যা সমাধানের একটি নির্ভরযোগ্য মাধ্যম। এখানে আপনি আপনার প্রশ্ন করার পাশাপাশি অন্যদের প্রশ্নে উত্তর প্রদান করে অবদান রাখতে পারেন অনলাইনে বিভিন্ন সমস্যার সমাধানের জন্য সবথেকে বড় এবং উন্মুক্ত তথ্যভাণ্ডার গড়ে তোলার কাজে।
...